বাল্যবিয়ে মুক্ত ঘোষণা করে নিজ মেয়েকে বাল্যবিয়ে দিয়ে আলোচিত:এমপি সালাহ উদ্দিন

অলনিউজ ডেস্ক:নিজ উপজেলাকে বাল্যবিয়েমুক্ত ঘোষণা করে নিজ মেয়েকে বাল্যবিয়ে দিয়ে এবার আলোচনায় জাতীয় পার্টির এমপি সালাহ উদ্দিন আহম্মেদ মুক্তি।

এবিষয় নিয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি যে তথ্য দিয়েছেন, তাতে দেখা গেছে সাত মাসের ব্যবধানে তিনি দুই কন্যা সন্তানের জনক। আবার এমপির তথ্যের সঙ্গে বড় মেয়ের এসএসসির কাগজপত্র বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে ছোট মেয়ের বয়স বড় বোনের চেয়ে বেশি।

 

ময়মনসিংহ শহরের একটি রেস্টুরেন্টে রোববার সন্ধ্যায় সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে মুক্তাগাছা থেকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত এমপি সালাহ উদ্দিন আহম্মেদ জানান, তার ছোট মেয়ে আফসানা মীম প্রিয়ন্তির জন্ম ১৯৯৮ সালের ১ জানুয়ারি। বর্তমানে তার বয়স ১৯ বছর ১ মাস ১৮ দিন। লিখিত বক্তব্যের সঙ্গে তিনি তার ছোট মেয়ের জন্ম নিবন্ধন সংযুক্ত করে দেন। ২০১৪ সালের ৮ জুলাই ইস্যু করা জন্ম নিবন্ধনে তৎকালীন মুক্তাগাছার পৌর মেয়র মো. আব্দুল হাই আকন্দের স্বাক্ষর রয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে বড় মেয়ের বয়স ২০ বছর ৬ মাস উল্লেখ করা হলেও তার জন্ম নিবন্ধন বা বয়স শনাক্তের কোনো কাগজপত্র সংযুক্ত করা হয়নি। এমপির দেয়া তথ্যে তার দুই মেয়ের বয়সের ব্যবধান ৭ মাস ২৪ দিন।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, তার বড় মেয়ে মাসকুরা মীম পায়েলের ২০১৪ সালের এসএসসি পরীক্ষার কাগজপত্রে তার জন্ম তারিখ ২৫ আগস্ট ১৯৯৮ সাল উল্লেখ রয়েছে। এ অনুযায়ী এমপির বড় মেয়ে মাসকুরা মীম পায়েলের বর্তমান বয়স ১৮ বছর ৫ মাস ২২ দিন। বড় মেয়ের এএসসির কাগজপত্র বিশ্লেষণে দেখা দিয়েছে আরো বড় বিভ্রান্তি। এ ক্ষেত্রে দেখা যায় বড় মেয়ের বয়স ছোট মেয়ের বয়সের চেয়ে কম।

 

এদিকে এমপির সংবাদ সম্মেলন হওয়ার আগেই ফেইসবুকে মুক্তাগাছার ইউএনও জুলকার নায়নও এমপির ছোট মেয়ের জন্ম নিবন্ধনে উল্লেখ করা জন্ম তারিখ উল্লেখ করে এটি বাল্যবিয়ে নয় বলে দাবি করেন।

গত শুক্রবার এমপি সালাহ উদ্দিন আহম্মেদ মুক্তি মুক্তাগাছা উপজেলা পরিষদে রাজকীয়ভাবে তার মেয়েকে বাল্যবিয়ে দেন পুলিশের এক এসআইয়ের সঙ্গে। বাল্যবিয়ের অনুষ্ঠানস্থল উপজেলা পরিষদ মাঠে গত ৩১ জানুয়ারি এই এমপি নিজে তার উপজেলাকে বাল্যবিয়েমুক্ত ঘোষণা করেন ঢাক-ঢোল পিটিয়ে।

Please follow and like us:

Related posts

Leave a Comment