মহানন্দায় নদী খনন ও রাবার ড্যাম নির্মাণ প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্র“তি বাস্তবায়ন হবেই —চাঁপাইনবাবগঞ্জে পানি সম্পদ মন্ত্রী

মহানন্দায় রাবার ড্যাম নির্মাণ ও নদী খনন প্রকল্পটি সরেজমিন পরিদর্শন ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের লক্ষ্যে পানি সম্পদ মন্ত্রী সহ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ চাঁপাইনবাবগঞ্জ সফর করেন। ফারাক্কার বিরূপ প্রভাবে ভরাট হয়ে গেছে চাঁপাইনবাবগঞ্জের উপর দিয়ে প্রবাহিত পদ্মা, মহানন্দা ও পাগলা নদী। পাগলা ও মহানন্দা নদী শুকেয়ে নৌ চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। হারিয়ে গেছে দেশি মাছ। পরিবেশের উপর বিরূপ প্রভাব পড়ছে। ভূ-গর্ভস্থ পানির স্তর প্রতিবছর নেমে যাচ্ছে। নদী তীরবর্তী এলাকায় দেখা দিচ্ছে পানি সংকট। বরেন্দ্র এলাকায় গভীর ও অগভীর নলকুপগুলো অচল হয়ে পড়ছে। ফলে সেচ কাজ বিঘ্নিত হচ্ছে। মহানন্দা নদী বাঁচাতে ইতোমধ্যে পরিবেশবাদী সংগঠন সেভ দ্য নেচার নদীগর্ভে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে। এই সমস্যা নিরসনে প্রধানমন্ত্রী প্রতিশ্র“ত মহানন্দা নদীতে রাবারড্যাম নির্মাণ ও নদী খনন প্রকল্পটি বাস্তবায়নে ধীরগতিতে জনমনে প্রশ্ন দেখা দেয়।

স্থানীয় পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়- মহানন্দা নদী পুনখনন ও রাবার ড্যাম নির্মাণের জন্য প্রায় ১৮৭ কোটি ৩১ লাখ টাকার প্রকল্পটি বর্তমানে পরিকল্পনা কমিশনে রয়েছে। স্থানীয় সংসদ সদস্য আব্দুল ওদুদের ডিও লেটারের ভিত্তিতে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় ২০১০ সালের ২ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডকে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেয়। এর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১১ সালের ২৩ এপ্রিল চাঁপাইনবাবগঞ্জে সরকারি সফরে এসে এক জনসভায় প্রতিশ্র“তি দেন। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ পাওয়ার পর প্রকল্পটি যাচাই-বাছাইয়ের জন্য কারিগরি কমিটি গঠন করা হয় এবং কমিটির প্রতিবেদনের সুপারিশের ভিত্তিতে মহানন্দা নদীর উপর রাবার ড্যাম নির্মাণের সাথে ৩৬ দশমিক ৫ কি.মি. নদী পুনখনন কাজ অন্তর্ভুক্ত করে ডিপিপি প্রণয়ন করা হয়। প্রকল্পে উপর ২০১৩ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর পরিকল্পনা কমিশনে প্রি-একনেক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকের পর প্রস্তবিত রাবারড্যাম ও নদী পুন: খনন, সেচের আওতাভূক্ত জমির পরিমান, পানির প্রাপ্যতা ও রিজার্ভারে পানির স্থায়িত্বকাল এবং ধারণ ক্ষমতা ইত্যাদি বিষয়ে বিস্তারিত সমীক্ষা করে পরিকল্পনা কমিশনে প্রকল্প প্রস্তাব পুনরায় দাখিল করা হয়। সে মোতাবেক আইডব্লিউএমকে দিয়ে সমীক্ষা করার পর ২০১৬ সালের জানুয়ারি মাসে পুনরায় ডিপিপি প্রণয়ন করা হয়। নকশা অনুযায়ী রাবার ড্যামের স্থান বীর শ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন জাহাঙ্গীর (মহানন্দা) সেতু হতে প্রায় ৫০০ মিটার ভাটিতে নির্ধারণ করা হয়।

জানা যায়- প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে নদী সংলগ্ন চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী উপজেলার জনসাধারণ পানির প্রাপ্যতা নিশ্চিৎ হবে, ৮ হাজার হেক্টর জমি চাষের আওতায় আসবে। ফলে ৫৫ কোটি ৫৫ লাখ ৬৬ হাজার টাকা মূল্যের ফসল উৎপাদন করা সম্ভব হবে। সেই সাথে মহানন্দা নদীতে ৬৫ কি.মি. বিশাল জলাধার তৈরী হবে। ফলে প্রতিবছর ২ কোটি ৩২ লাখ ৬৪ হাজার টাকার মাছ উৎপাদন করা যাবে এবং ভূগর্ভস্থ পানির স্তর বৃদ্ধি হবে। এতে বরেন্দ্র অঞ্চলে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা হবে এবং জনসাধারণের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ঘটবে।

মহানন্দা নদী ফিরে পাবে নাব্যতা, পাওয়া যাবে দেশি মাছ, বরেন্দ্র এলাকাসহ বিস্তীর্ণ এলাকার জনসাধারণ হবে উপকৃত, ফিরে আসবে জীববৈচিত্র, রক্ষা পাবে পরিবেশের ভারসাম্য।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের দীর্ঘসূত্রতায় প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্র“তির ছয় বছর পর আলোর মুখ দেখবে প্রকল্পটি। এ উপলক্ষে আজ রবিবার চাঁপাইনবাবগঞ্জ এ এক জনসভায় অংশগ্রহণ পানি সম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ এমপি। তিনি প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন করেন এবং বারঘরিয়ায় এক জনসভায় বক্তব্য দেন। তিনি নদী খনন ও রাবার ড্যাম নির্মাণের প্রতিশ্র“তি দেন।

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সদর উপজেলা শাখার সভাপতি ইকবাল মাহমুদ খান খান্নার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, বিশেষ অতিথি ছিলেন পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী মোঃ নজরুল ইসলাম (বীর প্রতিক), চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুল ওদুদ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য গোলাম মোস্তফা সহ আওয়ামী লীগের স্থানীয় পর্যায়ের নেতাকর্মী।

Please follow and like us:

Related posts

Leave a Comment