বিএনপির ‘ভিশন ২০৩০’ ফ্লপে ফুরফুরে ভাব আ. লীগে

অলনিউজ ডেস্ক:রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ বিএনপি ঘোষিত ‘ভিশন ২০৩০’ কোনও চাপে ফেলতে পারেনি ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে। বরং বিএনপি ঘোষিত ভিশনকে নকল আখ্যায়িত করে তা আলোচনায় আনতে পেরে আওয়ামী লীগের ভেতরে ফুরফুরে ভাব বিরাজ করছে। ক্ষমতাসীন দলের নীতি-নির্ধারকরা মনে করেন, বিএনপি ভিশন ঘোষণার পর তা নকল হিসেবে পরিচিতি পাওয়ায় উল্টো ইমেজ সংকটের মুখে পড়েছে দলটি।

অনেকে বলছেন, বার্ধক্যে পড়লেও দুই ঘণ্টার বেশি সময় ধরে ‘ভিশন ২০৩০’ ঘোষণা করে খালেদা জিয়া নেতাকর্মীদের কাছে প্রমাণ করেছেন যে, তিনি এখনও ‘ফিট’ আছেন। এটুকুই তার লাভ। এর বাইরে এই ভিশন আসলে কোনও কাজে আসবে না।

বিএনপির ভিশনের পাল্টা কোনও কৌশল ঠিক করবে কিনা ক্ষমতাসীনরা এমন প্রশ্নে আওয়ামী লীগের নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ের নেতারা জানিয়েছেন, ভিশন ঘোষণার আগে কম-বেশি চাপ ছিল আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরে। কী অঙ্গীকার নিয়ে দেশবাসীর কাছে হাজির হয় বিএনপি, জনগণের কাছে সেসব অঙ্গীকার আওয়ামী লীগের চেয়ে যুগোপযোগী কিনা এবং জনগণ তা কতখানি গ্রহণ করে বসে, তা নিয়ে কিছুটা চাপ ছিল দলটির শীর্ষ পর্যায়ে। কিন্তু ঘোষণার পরপরই সেই চাপ কেটে গেছে। বরং বিএনপির ভিশন দিয়ে বিএনপিকেই ঘায়েল করার যথেষ্ট সুযোগ পাওয়া গেছে বলে মনে করে ক্ষমতাসীনরা। সুযোগের অংশ হিসেবে এই ভিশন নকল বলে বিএনপিকে চাপে ফেলতে থাকে আওয়ামী লীগের নেতৃস্থানীয়রা। ভিশনে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের বিষয়ে কোনও উল্লেখ না থাকার বিষয়টিও বিএনপিকে ঘায়েল করার অন্যতম ইস্যু বলে মনে করে ক্ষমতাসীনরা।

আওয়ামী লীগের নীতি-নির্ধারকরা মনে করছেন, বিএনপির ভিশন জনগণের মধ্যে কোনও জাগরণ তৈরি করতে পারেনি। ভিশন ঘোষণার পর বরং আলোচনায় এসেছে- এগুলো আওয়ামী লীগের ভিশনের ভেতরেই আছে। আর এ বিষয়টিকে আওয়ামী লীগ নকল ভিশন হিসেবে আলোচনায় আনতে পেরে জনগণকে ভিশনবিমুখ করছে ক্ষমতাসীনরা।

জানা গেছে,  এ নিয়ে পাল্টা কোনও কৌশল গ্রহণ করতে চায় না  আওয়ামী লীগ। কারণ, বিএনপি ঘোষিত ভিশন জনগণের ভেতরে  কোনও প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারেনি।

জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর আরেক সদস্য ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ‘বিএনপির ভিশন ২০৩০ ঘোষণার আগে অনেক আলোচনা ছিল, কী আসছে ভিশনে অনেকের আগ্রহ ছিল। কিন্তু যখন ঘোষণা করা হলো দেখা গেল, জনগণের মধ্যে ভিশন নিয়ে কোনও জাগরণ তৈরি হয়নি। ফলে আওয়ামী লীগের ভেতরেও এই নিয়ে কোনও প্রতিক্রিয়া বা চাপের কোনও কারণ নাই।’  তিনি বলেন, ‘রাজনৈতিক দলের একমাত্র শক্তি জনগণ। তাদের ভিশন যেহেতু জনগণের ভেতরেই কোনও জাগরণ তৈরি করেনি, ফলে আওয়ামী লীগের ভেতরে কোনও আগ্রহ না থাকাই স্বাভাবিক।’

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম বলেন, ‘বিএনপির ঘোষিত ভিশন তাদের দলের নেতাকর্মীদেরকেই উজ্জীবিত করতে পারেনি। জনগণকে কী উজ্জীবিত করবে। তাদের ভিশন জনগণকে হতাশ করেছে।’ তিনি বলেন, ‘বিএনপির ভিশন কোনও পথ দেখাবে বলে জনগণ মনে করে না।’

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘যারা সরকারের সমালোচক তারাও বিএনপির ভিশন নিয়ে বলেছেন, এতে কোনও নতুনত্ব নাই।’ তিনি বলেন, ‘বিএনপির ভিশন জনগণকে আগ্রহী করে তোলে নাই। জনগণ মনে করে এই ভিশনে যা আছে, শেখ হাসিনার সরকার তার কিছু শেষ করে ফেলেছে, কিছু চলমান আছে। ফলে বিএনপির ভিশন বিএনপিকেই জনগণের কাছে ইমেজ সংকটে মুখে ফেলে দিয়েছে।’

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুবউল আলম হানিফ বলেন, ‘তাদের ঘোষিত ভিশন নকল। কোনও নতুনত্ব নেই।’ হানিফ বলেন, ‘যে কাজগুলো আওয়ামী লীগ করতে শুরু করেছে, বা করা শেষ হয়ে গেছে, সেগুলোই বিএনপির ভিশনে নতুন করে যোগ করা হয়েছে। ফলে জনগণের মধ্যেও এই নিয়ে আলোচনা নাই। আওয়ামী লীগের মধ্যেও এই নিয়ে কোনও আগ্রহ নাই।’ তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়া দুই ঘণ্টা ধরে বক্তব্য দিয়ে শুধু এটাই প্রমাণ করেছেন যে, তিনি ‘ফিট’। ভিশনে এ লাভটুকুই হয়েছে খালেদা জিয়ার।’

Please follow and like us:

Related posts

Leave a Comment