আগামীকাল গণভবনে তৃণমূল নেতাদের মুখোমুখি হচ্ছেন মন্ত্রী-এমপিরা

0

অনলাইন ডেস্ক:  আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতাদের মুখোমুখি হচ্ছেন মন্ত্রী ও এমপিরা। আগামীকাল শনিবারের বর্ধিত সভায় দলীয় মন্ত্রী এবং এমপিদেরও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে এই সভা হবে।

আওয়ামী লীগের কয়েকজন নীতিনির্ধারক নেতা সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানিয়েছেন, বর্ধিত সভায় ৮১ সদস্যের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের পাশাপাশি ১৮০ সদস্যের জাতীয় পরিষদ এবং ৭৮টি সাংগঠনিক জেলার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের উপস্থিত থাকার বিধান রয়েছে। তবে আগামীকালের বর্ধিত সভায় দলীয় মন্ত্রী এবং এমপিদেরও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। মন্ত্রী ও এমপিদের বর্ধিত সভায় অংশ গ্রহণের বিষয়টি গতকাল সংশ্লিষ্টদের জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী, তৃণমূল নেতারাই বর্ধিত সভায় দলের তৃণমূল পর্যায়ের সাংগঠনিক অবস্থার চিত্র তুলে ধরেন। তারা কেন্দ্রীয় নেতাদের ভুলত্রুটি তুলে ধরার সুযোগ পান। এবারও এর ব্যতিক্রম হবে না বলেই মনে করছেন কেন্দ্রীয় নেতারা। সে ক্ষেত্রে তৃণমূলের সঙ্গে দূরত্ব তৈরি করা মন্ত্রী ও এমপিরা সমালোচনার মুখোমুখি হতে পারেন।

বৈঠকে ঢাকা, চট্টগ্রাম, বরিশাল, সিলেট, ময়মনসিংহ, রংপুর, রাজশাহী ও খুলনা বিভাগের আওতাধীন জেলাগুলোর সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদকদের মধ্যে আটজন বক্তৃতা করবেন। দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে এই বর্ধিত সভায় দলের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরও বক্তৃতা করবেন।

দলের উপদেষ্টা পরিষদ, জাতীয় পরিষদ সদস্য, দলীয় মন্ত্রিপরিষদের সদস্য, জাতীয় সংসদ সদস্য, সাংগঠনিক জেলা ও মহানগর শাখার সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদকসহ সব ক’টি সাংগঠনিক জেলার দপ্তর সম্পাদক, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক, উপ-দপ্তর সম্পাদক, উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদকরা বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন।

বর্ধিত সভায় থাকছেন না ১০ জেলার সব প্রতিনিধি

তবে পূর্ণাঙ্গ কমিটি না থাকায় ১০টি সাংগঠনিক জেলার সব তৃণমূল নেতা বর্ধিত সভায় উপস্থিত থাকতে পারবেন না। এর মধ্যে নয়টি জেলায় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বর্ধিত সভায় আসার সুযোগ পেলেও পূর্ণাঙ্গ কমিটি না থাকায় ওই সব জেলা থেকে দপ্তর সম্পাদক, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক, উপ-দপ্তর সম্পাদক, উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক পদের কেউ বর্ধিত সভায় থাকবেন না।

কুমিল্লা মহানগরে কোনো কমিটিই নেই। সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক তো দূরের কথা, এ জেলায় আহ্বায়ক কমিটিও নেই। এ কারণে কুমিল্লা মহানগর থেকে তৃণমূল পর্যায়ের কোনো নেতৃত্বই বর্ধিত সভায় আসতে পারছেন না।

চট্টগ্রাম বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক এ কে এম এনামুল হক শামীম সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানিয়েছেন, সাময়িক বহিষ্কারাদেশ থাকায় খাগড়াছড়ির সাধারণ সম্পাদক জাহেদুল ইসলাম ও বান্দরবানের সাধারণ সম্পাদক কাজী মুজিবুর রহমানকে বর্ধিত সভায় অংশগ্রহণের আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। এ ছাড়াও পূর্ণাঙ্গ কমিটি না থাকায় বর্ধিত সভায় আসতে পারছেন না চাঁদপুরের তৃণমূল নেতারা। চাঁদপুর জেলা কমিটি অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে।

সিলেট বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন বলেছেন, কমিটি পূর্ণাঙ্গ না হওয়ায় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ছাড়া সুনামগঞ্জের তৃণমূল নেতাদের কেউই বর্ধিত সভায় আসতে পারছেন না। ময়মনসিংহ বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ অ্যাডভোকেট জানিয়েছেন, একই কারণে ময়মনসিংহ, নেত্রকোনা ও ময়মনসিংহ মহানগর থেকে সব তৃণমূল নেতা বর্ধিত সভায় আসবেন না।

ঢাকা বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেছেন, পূর্ণাঙ্গ কমিটি না থাকায় ফরিদপুর, শরীয়তপুর, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরের সব তৃণমূল প্রতিনিধি বর্ধিত সভায় অংশগ্রহণের সুযোগ পাচ্ছেন না।

তবে বরিশাল বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, রংপুর বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক, খুলনা বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন ও রাজশাহী বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী জানিয়েছেন, তাদের বিভাগের প্রতিটি সাংগঠনিক জেলায় পূর্ণাঙ্গ কমিটি থাকায় তৃণমূলের সব প্রতিনিধিই বর্ধিত সভায় যোগদান করবেন।

এ বর্ধিত সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রস্তুতি গ্রহণের চূড়ান্ত নির্দেশনার পাশাপাশি দলকে আরও গণমুখী করা এবং সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের চিত্র জনগণের কাছে পেঁৗছে দেওয়ার তাগিদ দেবেন বলে নেতারা জানিয়েছেন। সেই সঙ্গে বর্ধিত সভার মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু হবে। এ লক্ষ্যে দলের সদস্যপদ নবায়নের পাশাপাশি নতুন সদস্য সংগ্রহ অভিযান শুরু হবে।

উপ-দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ূয়া বলেছেন, বর্ধিত সভার পর আগামী ২১ মে রোববার সকাল সাড়ে ১০টায় ধানমণ্ডির প্রিয়াংকা কমিউনিটি সেন্টারে দপ্তর সম্পাদক, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক, উপ-দপ্তর সম্পাদক এবং উপ-প্রচার সম্পাদকদের নিয়ে  ডাকা হয়েছে পৃথক বৈঠক।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

ব্রেকিং নিউজঃ