ধর্ষক নাঈমের সঙ্গে ছবি-সেলফি আতঙ্কে সেলিব্রেটিরা!

সোনালীনিউজডটকম: বনানীর আলোচিত জোড়া ধর্ষণ মামলায় গ্রেপ্তার হওয়া নাঈম আশরাফ ওরফে আবদুল হালিমের সঙ্গে ছবি কিংবা সেলফির কারণে ফেঁসে যাচ্ছেন অনেক নামি-দামি শোবিজ অঙ্গনের তারকারা। গোমর ফাঁসের আতঙ্কে আছেন অনেক সেলিব্রেটি!

বুধবার (১৭ মে) একুশে টেলিভিশনের অনুষ্ঠান প্রধানের পদ থেকে বরখাস্ত হয়েছেন ফারহানা নিশো। তার এ বরখাস্তের নেপথ্যের কারণ হিসেবে আলোচিত হচ্ছে ধর্ষক নাঈমের সঙ্গে তার একটি ছবিকে ঘিরে। এই খবরটি প্রকাশের পরই সামাজিক গণমাধ্যমে আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়।

বেশ কিছু গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হয় সম্প্রতি আলোচিত বনানী ধর্ষণ ঘটনার আসামি নাঈম আশরাফের সঙ্গে সেলফি তোলায় তার সঙ্গে ফারহানা নিশোর ভালো সম্পর্ক রয়েছে বলে ধারণা করছে একুশে টিভি কর্তৃপক্ষ। তাই তাকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে।

মডেল রাহা

যদিও খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অফিসের আভ্যন্তরীণ কিছু বিষয়ে ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে বিরোধ চলছিল ফারহানা নিশোর। সেই জের ধরেই তাকে অব্যাহতি দিয়েছে একুশে টিভি। সম্পূর্ণ অমূলক একটি প্রসঙ্গ টেনে ফারহানা নিশোর বক্তব্য ছাড়াই তাকে ছোট করে সংবাদ প্রকাশ ও বিভিন্নজনের মনগড়া ফেসবুকিংয়ের জন্য অনেকেই এর প্রতিবাদ করছেন।

শুধু যে ফারহানা নিশোর সঙ্গে নাঈম আশরাফের ভালো সম্পর্ক ছিল, তা কিন্তু নয়। নাঈম ই-মেকার্স নামে একটি ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠান চালান। সে সুবাধে দেশের বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের বড় কর্তা, পুলিশ কর্মকর্তা, জনপ্রিয় ক্রিকেটার, উঠতি মডেল, শোবিজ অঙ্গনের তারকাসহ নামি-দামি লোকজনের সঙ্গেই পরিচয় ছিল।

হিরো আলম

তবে নাঈমের বিরুদ্ধে প্রতিষ্ঠিত চিত্রনায়িকা থেকে উঠতি মডেলদের বিভিন্ন বিত্তশালীদের কাছে সরবরাহের কাজ করতেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে পুলিশের কাছে তথ্য দিয়েছেন নাঈমের ঘনিষ্ঠ বন্ধু বনানীর ধর্ষণ ঘটনার প্রধান অভিযুক্ত সাফাত আহমেদ। সাফাত তার জবানবন্দিতে বলেছেন, দেশের অনেক নামি-দামি নায়িকা, মডেলদের সঙ্গে নাঈমই তাকে পরিচয় করিয়ে দিয়েছেন।

নাঈম ধর্ষণ মামলার আসামি হওয়ার পর অনেক সেলিব্রেটিদের সঙ্গে তার ছবি বেরিয়েছে। এর মধ্যে আছেন সাকিব আল হাসান, আশরাফুল ইসলাম, সাংবাদিক মুন্নি সাহা, তানভীর তারেক, ফারহানা নিশো, ইউটিউব ভিত্তিক তারকা হিরো আলম, তানহা খান এবং বেশ কয়েকজন উঠতি মডেল ও শোবিজ অঙ্গনের তারকারা।

আশরাফুল

তারকাদের এসব ছবি ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে গেছে। এ নিয়ে শোরগাল চলছে প্রতিনিয়ত। পক্ষে-বিপক্ষে মতামতও তুলে ধরছেন অনেকে।

বৃহস্পতিবার (১৮ মে) চলচ্চিত্র অভিনেতা ওমর সানি নিজের ব্যক্তিগত ফেসবুক অ্যাকাউন্টে লেখেন, ‌‘মুচি সম্প্রদায় থেকে শুরু করে মন্ত্রী পর্যন্ত যে কোনো মানুষের সাথে আমাদের ছবি এবং সেলফি থাকতে পারে। আমরা জানি না কে কি। আমার স্ত্রী (চিত্রনায়িকা মৌসুমী) একজন অভিনেত্রী, তার সাথেও ছবি থাকতে পারে।

সাকিব

সে কিন্তু জানে না কে যৌনকর্মী কে ধর্ষণকারী কে জঙ্গি কিংবা ডাকাত বা হুজুর। আমরা যারা শিল্পী তাদের সবশ্রেণির ভক্ত থাকতে পারে। তাহলে একটা সেলফির কারণে ফারহানা নিশোর চাকরি যাবে কেন? তার দোষ হবে কেন? খুব কাছ থেকে নিশোকে দেখেছি একুশে টিভির প্রতি তার টান।’

ওমর সানি আরও লেখেন, ‘ব্যক্তিগত কারণে ইটিভির অনুষ্ঠান করা ছেড়ে দিয়েছিলাম। ফারহানার কারণে আমি আর মৌসুমী গিয়েছিলাম। ও, একটি কথা- ব্যক্তিগত দোষের কারণে যদি চাকরি যায় তাহলে আমার বলার কিছু নাই। সেলফির কারণে যদি দোষ দেন, তাহলে এরকম দোষে আমরা অনেক শিল্পীরাই দোষী। নিজেকে প্রশ্ন করুন। আপনি কি ধোয়া তুলসি পাতা?’

সবশেষে বিশেষ দৃষ্টি আকর্ষণ করে ওমর সানি লিখেছেন, ‘প্রতিটা ধর্ষণকারীর দৃষ্টান্তমূলক বিচার চাই।’

Please follow and like us:

Related posts

Leave a Comment