৩দিন বন্ধের পর আম বেচাকেনা শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক: আমের রাজ্য জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার কানসাটের আমের আড়তগুলোতে টানা তিনদিন আম বেচা-কেনা বন্ধ থাকার পর বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বেচা-কেনা পুনরায় শুরু হয়েছে।

আড়তে আম বিক্রেতাদের কাছ থেকে শতকরা পাঁচ টাকা হারে কমিশন ও ৪৬ কেজিতে প্রতিমন হিসেবে আম কেনার প্রতিবাদে বিক্রেতারা গত সোমবার সকাল থেকে আম বিক্রি বন্ধ করে দেন।

একই সময় থেকে নিজেদের সিদ্ধান্তে অটল থেকে আড়তদাররাও আম কেনা বন্ধ রাখেন। ফলে সৃষ্টি হয় অচলাবস্থার। আমের ভরা মৌসুমের শুরুতেই দেশের বৃহত্তম আমবাজার কানসাট বন্ধ হয়ে যাওয়ায় ক্ষতির মুখে পড়েন আমচাষী, বাগান মালিক, ব্যবসায়ী, আড়ৎদার সহ সংশ্লিষ্ট সকল পক্ষ।

প্রচন্ড গরমে আম গাছে পেকে বাজারজাত ও সরবরাহ না হওয়ায় পঁচে নষ্ট হবার উপক্রম হয়। এ সমস্যা নিরসনে কানসাট ইউপি চেয়ারম্যান বেনাউল ইসলামকে প্রধান করে সোমবারই একটি কমিটি গঠন করে প্রশাসন।

তিনি সব পক্ষের সঙ্গে আলোচনা শুরু করেন। বুধবার দিনব্যাপী দফায় দফায় বৈঠকের পর রাতে স্থানীয় সংসদ সদস্য গোলাম রাব্বানীর কানসাট পুকুরিয়ার বাসভবনে শেখ রাসেল অডিটোরিয়ামে এ ব্যাপারে দুই পক্ষের সমঝোতা হয়।

বেনাউল ইসলাম বৃহস্পতিবার দুপুরে জানান, সমঝোতার পর সকাল থেকে কানসাট আম বাজারের বিভিন্ন স্থানে আম বেচা-কেনা শুরু হয়েছে।

তিনি বলেন, সমঝোতা অনুযায়ী আড়ৎদাররা ৪৫ কেজিতে কাঁচা এবং ৪৩ কেজিতে মন হিসেবে পাঁকা আম কিনবেন। প্রতি মন আমে একটি আম থাকবে শলা। আম বিক্রেতারা বিক্রয়ের ক্ষেত্রে কোন কমিশন দিবেন না।

সকল পর্যায়ে ডিজিটাল মিটার ব্যবহার করা হবে। সম্পূর্ন নগদে আম কেনা-বেচা চালু থাকবে। শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শফিকুল ইসলাম সমস্যা সমাধানের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, জেলা প্রশাসন থেকে এবার আম চাষি বা বিক্রেতাদের কাছ থেকে ওজনে অতিরিক্ত আম ও কোন কমিশন আদায় না করার জন্য নিয়ম বেঁধে দেওয়া হয়।

তবে এ নিয়ে সৃষ্ট জটিলতায় কানসাট বাজারে আম বেচা-কেনা বন্ধ হয়। এ সমস্যা নিরসনে কানসাট ইউপি চেয়ারম্যান বেনাউল ইসলামকে প্রধান করে গঠিত কমিটি বুধবার রাতে সংশ্লিষ্ট সব পক্ষকে নিয়ে সমস্যার সমাধান করেছেন।

কানসাট আম বাজার সম্পূর্ণ চালু রয়েছে। এর পরেও কেউ যদি কোন জটিলতা সৃষ্টি করে তবে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

বেনাউল ইসলামের মধ্যস্থতায় বুধবার রাতের আলোচনায় আড়ৎদারদের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন ওমর ফারুক টিপু, মো.আলাউদ্দিন,বকুল চৌধুরী,ফারুক আহম্মেদ প্রমুখ।

আম চাষী ও বিক্রেতদের পক্ষে ছিলেন, আতিকুল ইসলাম,নজরুল ইসলাম,অধ্যক্ষ আতাউর রহমান প্রমুখ।

Please follow and like us:

Related posts