‘১৬ বছরের কিশোরী, হস্তমৈথুন করি… তার জন্যই কি এত ব্রণ?’

ওয়েব ডেস্ক: বয়ঃসন্ধির নানান সমস্যায় জর্জরিত কিশোর মন। এমনই এক বিড়ম্বনার নাম ব্রণ। উত্‍পত্তি থেকে নিরাময়, সব কিছু ঘিরেই অনেক প্রশ্ন। কৌতূহল মেটাতে এগিয়ে এলেন চিকিত্‍সক বিনোদ মিশ্র।

প্রশ্ন: বয়স ১৬ বছর। সারা মুখ, এমনকি পিঠেও অসংখ্য ব্রণ। চুলকানি ও যন্ত্রণা ছাড়াও তার জেরে শরীরে বিশ্রী ক্ষত তৈরি হচ্ছে। বন্ধুরা বলে, অতিরিক্ত স্বমেহনের ফলেই নাকি ব্রণর আধিক্য দেখা দেয়। স্বীকার করছি, সপ্তাহে অন্তত দুই দিন আমি মাস্টারবেট করে থাকি। এতে তাত্‍ক্ষণিক শারীরিক তৃপ্তি পেলেও ব্রণয় মুখ ছেয়ে গেলে অপরাধবোধে ভুগি। কারও মুখোমুখি হতে লজ্জা পাই। মনে হয়, সকলেই বুঝে ফেলেছেন যে কী কারণে আমার এই সমস্যা হচ্ছে। আচ্ছা, মাস্টারবেট করলেই কি ব্রণ জন্মায়?

মলম ও লোশন ব্যবহার করে দেখেছি, সাময়িক উপকার হয়। কিন্তু তার পরেই ফের ব্রণর আক্রমণ শুরু হয়। জানিয়ে রাখি, আমার খাদ্যাভ্যাস খুবই অনিয়মিত। ব্যালান্সড ডায়েটেও অভ্যস্ত নই। এছাড়া রোজই প্রচুর মাথার চুল উঠছে। দয়া করে সমস্যা থেকে আমায় মুক্তি দিন।
– নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কিশোরী

উত্তর: যাচাই না করেই বন্ধুদের কথা বিশ্বাস করা বোকামি। ওরা হয় না-জেনে অথবা তোমায় বিব্রত করার জন্য এমন ভুল তথ্য আমদানি করেছে। জেনে রাখো, স্বমেহন বা মাস্টারবেশনের কারণে কখনও ব্রণ হয় না। যদি তেমনই হত, তাহলে আমাদের সকলের ত্বকই ক্ষত-বিক্ষত থাকত। আসলে বয়ঃসন্ধির সময় নানান হরমোন ক্ষরণের ফলে এবং হজমের সকমস্যা থেকে ব্রণ জন্মায়। আমার পরামর্শ, ব্রণ থেকে রেহাই পেতে চাইলে চর্মরোগ বিশেষজ্ঞের কাছে যাও। তিনিই সঠিক সমাধান বলে দেবেন। সব শেষে বলি, মাস্টারবেশন সম্পূর্ণ স্বাভাবিক অভ্যাস। তবে অতিরিক্ত কিছুই ভালো নয়। কিন্তু তার জন্য আর যা-ই হোক, অপরাধ বোধে ভুগো না।
– চিকিত্‍সক বিনোদ মিশ্র

Please follow and like us:

Related posts

Leave a Comment