চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা বিএনপিতে সমন্বয়ের সুর

বিএনপির ভোট ব্যাংক হিসেবে পরিচিত উত্তরের সীমান্তবর্তী জেলা চাঁপাইনবাবগঞ্জ বিএনপিতে অভ্যান্তরিন দ্বন্দের সমাধান হতে যাচ্ছে। লবিং গ্রুপিংয়ের কারনে সাংগঠনিকভাবে পিছিয়ে পড়া এক সময়ের জনপ্রিয় দলটি আবারো সু সংগঠিত করতে প্রভাবশালী নেতারা বসছেন এক টেবিলে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর আসনের সাবেক সংসদ সদস্য বিএনপির যুগ্ন মহাসচিব সমন্বয়ের লক্ষে বিরোধী গ্রুপের নেতৃত্বে থাকা জেলা বিএনপির সাবেক সাধারন সম্পাদক গোলাম জাকারিয়ার শরনাপ্ন হন। দলের নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা যায়, গত সোমবার বিকেলে যুগ্ন মহাসচিব হারুনুর রশিদ দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে গোলাম জাকারিয়ার নবাবগঞ্জ ক্লাবের অফিসে এসে উপস্থিত হন। বিএনপি নেতা গোলাম জাকারিয়াকে ভেদাভেদ ভুলে এক সাথে রাজনীতি করার প্রস্তাব দেন যুগ্ন মহাসচিব হারুনুর রশিদ। এ সময় উভয় গ্রুপের মধ্যে চলমান অভ্যান্তরিন দ্বন্দ সমাধানে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন তারা।

লবিং গ্রুপিংয়ের কারনে নীরব ভূমিকায় থাকা বিএনপি কর্মী ও বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের সক্রিয় নেতা কর্মীদের নিয়ে দ্বিতীয় দফায় নিজ কার্যালয়ে আবারো বৈঠক করেন মূলধারার নেতৃত্বে থাকা প্রভাবশালী নেতা গোলাম জাকারিয়া। এসময় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন- দেশের পরিস্থিতি বিবেচনা কে আমাদের ঘুরে দাঁড়াতে হবে। ব্যাক্তিগত স্বার্থ নয়, দলের স্বার্থকে প্রাধান্য দিয়ে সংগঠনকে গতিশীল করতে হলে অভ্যান্তরিন দ্বন্দ নিরাশনের বিকল্প নেই। যুগ্ন মহাসচিব হারুনের পক্ষ থেকে প্রস্তাব এসেছে একত্রিত হওয়ার। আমাদের যথাযোগ্য মর্যাদা দিলে এক সাথেই দল করতে হবে। এ সময় বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীদের মতামত নেন তিনি। অস্তিত্ব রক্ষার লড়ায়ে দলের প্রয়োজনে সাংগঠনিক গতিশীলতা ফিরিয়ে আনতে এটি প্রশংসনীয় উদ্যোগ বলে মন্তব্য করেন জেলা যুবদলের সাধারন সম্পাদক তবিউল ইসলাম তারিফ।
জেলা বিএনপির সভাপতি এ্যাড. রফিকুল ইসলাম টিপু বলেন- ঐতিহ্যবাহী এ দলটি অভ্যান্তরিন কোন্দলের কারনেই ঝিমিয়ে পড়েছে। দলের স্বার্থে নিজেদের মধ্যে রশি টানাটানি বাদ দিতে হবে, কেননা সংগঠনকে শক্তিশালি করতে সমন্বয় জরুরী। কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে দেনদরবার নয় তৃনমূল নেতাকর্মীদের সাথে যোগাযোগ আর সাংগঠনিক সভা- সমাবেশ গঠনতন্ত্রের ভিত্তিতেই করতে হবে।

এ সময় তিনি নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য করে বলেন, জাতীয়তাবাদী শক্তিকে আরো শক্তিশালি করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন ও যে কোন পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। কেন্দ্রীয় হস্তক্ষেপে সদ্য স্থগিত হওয়া সদর উপজেলা বিএনপির যুগ্ন আহব্বায়ক এ্যাড. মোল্লা হাসান শরিফ সনি বলেন, পদ বঞ্চিত ত্যাগী নেতাকর্মীদের প্রত্যাশার প্রতিফলন ঘটাতে হবে। জাতীয়তাবাদী আদর্শের ত্যাগী নেতাকর্মী মূল্যায়ন হলেই গতিশীল হবে সংগঠন। যোগ্যতা অনুযায়ী সাংগঠনিক পদ দেওয়া হলে অভ্যান্তরিন দ্বন্দের সমাধান ফলপ্রসুু হবে।

Please follow and like us:

Related posts

Leave a Comment