দৈনিক উপচার পত্রিকার সাংবাদিক বাবুর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে নগরীতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত

নিজস্ব প্রতিনিধি : রাজশাহী থেকে প্রকাশিত দৈনিক উপচার পত্রিকার সাংবাদিক এসএম আব্দুল কাজিম বাবুর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে নগরীতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে রাজশাহী সাংবাদিক সমাজ ও বাংলাদেশ অনলাইন সাংবাদিক কল্যান ইউনিয়ন(বসকো) রাজশাহী বিভাগ। এছাড়াও এই মানব বন্ধনের সাথে একত্বতা প্রকাশ করেছেন বৃহত্বর ফরিদপুর একতা সমিতির সভাপতি মো: সেলিম রেজা।

রবিবার বেলা ১১টায় নগরীরর সাহেব বাজার জিরো পয়েন্টে রাজশাহী সাংবাদিক সমাজের আহবায়ক ও বাংলাদেশ অনলাইন সাংবাদিক কল্যান ইউনিয়ন(বসকো) রাজশাহী বিভাগের সভাপতি নূরে-ইসলাম মিলন এর সভাপতিত্বে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। টানা দেড় ঘন্টা ব্যাপি চলা মানববন্ধন কর্মসূচিতে বিভিন্ন স্থানীয়, জাতীয় পত্রিকা ও অনলাইন পত্রিকার শতাধিক সাংবাদিকবৃন্দ সারিবদ্ধ ভাবে দাঁড়িয়ে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত এ কর্মসূচি পালন করেন। এতে রাজশাহীর সকল সাংবাদিক ছাড়াও বিভিন্ন রাজনৈতিক এবং সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও পেশাজীবী সংগঠনের নেতারা অংশ নেন। তারা এমন মিথ্যাচারের কঠোর শাস্তি দাবি করেন। পাশাপাশি এ ঘটনার নেপথ্যে যারা জড়িত, তাদেরও আইনের আওতায় আনার দাবি জানান তারা।

রাজশাহী সাংবাদিক সামাজ-এর যুগ্ন আহবাহক, উত্তর বঙ্গের একমাত্র জাতীয় পত্রিকা দৈনিক বার্তার সাংবাদিক ও রাজশাহীর সময় ডটকম পত্রিকার সম্পাদক মোঃ মাসুদ রানা রাব্বানীর সঞ্চালনায় মানববন্ধন কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ, শাহমখদুম থানার সহ-সভাপতি মোঃ বাদশা শেখ, জাতীয় মানবধিকার কাউন্সিল রাজশাহী জেলা শাখার মানবধিকার কর্মী মোসাঃ মারুফা বেগম, দৈনিক রাজশাহীর আলো পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক মোঃ আজিবার রহমান, দৈনিক উপচার পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক অধ্যক্ষ মোঃ আবু ইউসুফ সেলিম জাতীয় যুব সংহতি রাজশাহী মহানগর সাধারন সম্পাদক মোঃ ইশারুল ইসলাম, নগর জাপার সিনিয়র নেতা, মোঃ সালাউদ্দিন মিন্টু, জাতীয় যুব সংহতি কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির যুগ্ন সাংগঠনিক সম্পাদক- মোঃ আসাদুল হক দুখু, দৈনিক মুক্ত খবর পত্রিকার রাজশাহী বুরে‌্যা ও দৈনিক রাজশাহীর আলো পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক আবু কাউসার মাখন, দৈনিক লাখো কন্ঠর সাংবাদিক মোঃ ইমদাদুল হক, বাংলাদেশ অনলাইন সাংবাদিক কল্যান ইউনিয়ন(বসকো) চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি আখতারুজ্জামান,গণদৃষ্টির সাংবাদিক ইঞ্জিনিয়র মোঃ এনামুল ইসলাম, দৈনিক বরেন্দ্র প্রতিদিন পত্রিকার সাংবাদিক এস,এম,বিশাল রাজশাহী সাংবাদিক সমাজের আহবায়ক ও দৈনিক উপচার পত্রিকার বার্তা সম্পাদক, -মোঃ নূরে- ইসলাম মিলন, রাজশাহীর সময় ডট.কম পত্রিকার প্রকাশক মোঃ আবু হেনা মোস্তফা জামান,গনধ্বনি প্রতিদিন পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার মো: মাসুদ আলী পুলক,দৈনিক উপচার পত্রিকার ফটো সাংবাদিক ফাইসাল আহম্মেদ টকি, ফটো সাংবাদিক হজরত আলী প্রমূখ।

মানববন্ধনে বক্তরা বলেন, সাংবাদিকদের একটা অংশের সেচ্ছাচারিতা ও কাদা ছোড়াছুড়ির কারনে সাংবাদিকদের মাঝে বিশৃঙ্খলা দেখা দিয়েছে। পাশাপাশি সাধারন মানুষের নিকট সাংবাদিকরা আস্থা ও গ্রহণ যোগ্যতা হারাচ্ছে। যাহা মোটেও শোভনীয় নহে। এহেন আচারণ বন্ধ করাসহ দেশের স্বার্থে ও জণকল্যানে সবাইকে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে ভাতৃত্ব সম্পর্ক গড়ে তোলার আহব্বান জানানো হয়। সাংবাদিকরা এক অপরকে ভাই না ভাবলে কখনই সমাজের সাধারণ মানুষের কল্যাণ হবেনা বলেও বক্তারা উল্লেখ করেন। এছাড়া সাংবাদিকতার বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ কর্মশালার অনুষ্ঠানে স্থানীয় পত্রিকার সম্পাদকবৃন্দের সাথে আলোচনা না করে, সাংবাদিক কাজি শাহেদ ও সাংবাদিক মামুনুর রশিদ স্থানীয় পত্রিকার সম্পাদকদের ছোট করাসহ তাদের বার বার লজ্জায় ফেলছেন এটাও শোভনিয় আচারণ নয় বলে বক্তব্য দেন একাধিক বক্তরা।

দৈনিক উপচার পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক অধ্যক্ষ মোঃ আবু ইউসুফ সেলিম বলেন, এমন ঘটনার নিন্দা জানানোর ভাষা সাংবাদিকদের জানা নেই। এ ঘটনার সঙ্গে আর কারা জড়িত তা খুঁজে বের করতে হবে। তাদের আইনের আওতায় আনতে হবে। এমন ঘটনা আর মুখ বুজে সহ্য করা হবে না।
দৈনিক রাজশাহীর আলো পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক মোঃ আজিবার রহমান বলেন, শুধু নিঃসর্ত মুক্তির দাবি ও মানববন্ধন করলেই হবে না এমন মিথ্যাচারি সাংবাদিকদের কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। তা না হলে রাজশাহীর সাংবাদিক সমাজ বসে থাকবে না। যারা এ সাহস দেখিয়েছে তাদের শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। প্রশাসন ব্যবস্থা না নিলে সাংবাদিকরাই তাদের কলম নিয়ে এদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবে।

পরিশেষে রাজশাহী সাংবাদিক সমাজের আহবায়ক নূরে-ইসলাম মিলন বলেন, গত ৩০ শে অক্টোবর সিনিয়র সাংবাদিক ও রাজনীতিবীদদের মিথ্যা কথা বলে এই জিরো পয়েন্টে তাদের মানববন্ধনে নিয়ে আসা হয়েছিল যা নিয়ে বিব্রত প্রকাশ করেছেন সরকার দলীয় ও বিরোধীদলের নেতাকর্মীরা। এ সময় তাদের মানববন্ধন থেকে সাংবাদিক বাবুকে কথিত ও হলুদ সাংবাদিক বলা হয়েছে। যদি বাবু কথিত ও হলুদ সাংবাদিক হয় তাহলে কাজী শাহেদের মত মিথ্যাবাদি সাংবাদিকরা কী? যে অংশ গত দিনে সাংবাদিক বাবুর বিরুদ্ধে মানববন্ধন করেছে সেটা আওয়ামী পন্থি, কিন্তু তাদের সাধারণ সম্পাদক মামুন অর রশিদ ছিলেন এক সময়ে বাংলা ভাইয়ের উন্নতম সহযোগী শীষ মোহাম্মদের আস্তা ভাজন তানোর উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি । তার চাঁদাবাজীতে অতিষ্ট হয়ে সে সময় তানোরবাসী তার বিরুদ্ধে ঝাঁটা মিছিল করে ছিলো। এটা আপনারা তানোরে একটু খোঁজ নিলেই জানতে পারবেন। শুধু তাই নয় বিগত দিনে এই মামুনুর রশিদ ১০/২০ টাকার জন্য শিক্ষার্থীদের নকল দিতেন সে এখন সাংবাদিক নেতা বনেছেন ।

আর সভাপতি কাজী শাহেদ নিজেকে মুক্তিযুদের পক্ষের লোক বলে দাবি করলেও সে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রদলের সভাপতি ও এক যুবদল নেতার একান্ত নিজস্ব ক্যাডার হিসেবে চারঘাট এলাকায় পরিচিত। কাজী শাহেদ কোনো রকমে এসএসসি পাশ করে তারপর সাংবাদিকতার শুরু করেন। শাহেদের বাল্য বন্ধু চারঘাটের সামাদ যে কিনা চারঘাট এলাকার মাদক সিন্ডিকেট পরিচালনা করে। এর আগে তার বন্ধু সামাদের ফেন্সিডিলসহ মাইক্রোবাস চারঘাট মডেল থানায় আটক করলেও সাংবাদিক নেতা বন্ধু কাজি সাহেদের সুপারিশে তা ছেড়ে দেয়া হয় । শুধু এখানেয় শেষ নয়, এই দুই সাংবাদিক নেতা বিভিন্ন রাজনৈতিক/সরকারী কর্মকর্তা ও বিভিন্ন বেসরকারী প্রতিষ্ঠান থেকে চাঁদাবাজির মাধ্যমে গড়েছেন প্রায় কোটি টাকার সম্পদ। যেটা দুর্নীতি দমন কমিশন দুদকের কাছে আমরা এ মানববন্ধন থেকে অনুরোধ জানাচ্ছি এদের অবৈধ সম্পদের বিষয়ে খোজ খবর নেয়ার জন্য ।

এছাড়াও সে সময় অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বক্তব্য রেখেছিলেন মাদকসেবি কথিত সাংবাদিক তানজিমুল হক। সে কি দুধে ধোয়া ? মাদক সেবনের দায়ে সে সময়ে যুগান্তরের সাবেক ব্যুরো প্রধান মরহুম বুলবুল চৌধুরী তাকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করেন। এছাড়াও তাকে মাদকসেবনের জন্য তার পরিবার থেকে কয়েকবার রাখা হয়েছিল মাদক নিরাময় কেন্দ্রে । সাংবাদিক বাবুকে যে ভাবে মিথ্যে মামলায় ফাসিয়েছে ঠিক একই ভাবে এই সিন্ডিকেটটি গোদাগাড়ীর এক সাংবাদিককে হয়রানি করেছিল । এরপর যদি কেউ বাবুকে হলদু সাংবাদিক বলেন তা হলে আমার হলুদ সাংবাদিক অন্তত এদের চেয়ে তো ভাল । সবুজ সাংবাদিকতার মুখোশ পরে জনসাধারণকে তো প্রতারণা করছি না।

সর্বশেষে এই মানববন্ধন থেকে সাংবাদিক এসএম আব্দুল কাজিম বাবুর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও নিঃশর্ত মুক্তি দেওয়া না হলে আগামী ১২ নভেম্বর রবিবার কোট প্রাঙ্গণে বেলা সাড়ে দশটা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত অনশণ কর্মসূচি পালন করবে রাজশাহী সাংবাদিক সমাজের সদস্যবৃন্দরা। এ সময় তিনি মানববন্ধনে অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে অনুষ্ঠানকে সফল করার জন্য সকল সাংবাদিক ও বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতাদের ধন্যবাদ জানিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্ত ঘোষনা করেন।


Please follow and like us:

Related posts

Leave a Comment