ময়মনসিংহে পিবিআইয়ের আস্থা কমছে

নিজস্ব প্রতিবেদক : ময়মনসিংহে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে । এতে উন্নত প্রযুক্তিগত সুযোগ সুবিধা সম্বলিত পুলিশের এই বিশেষ ইউনিটটি ময়মনসিংহবাসীর ইতিমধ্যে তাদের আস্থা হারাতে বসেছে । ফলে ভেস্তে যেতে বসেছে জেলায় জটিল মামলার কার্যক্রম । সূত্র জানায়, থানায় একটি আমলযোগ্য মামলা দায়ের হয় তখন সেই অপরাধের তদন্তের ভার পড়ে থানার পুলিশের কাঁধে। পুলিশের ঘুষ আর দুর্নীতি বাণিজ্যের কারণে মাসের পর মাস, বছরের পর বছর চলতে থাকে মামলার তদন্তের কাজ। ফলে অপরাধের শিকার ব্যক্তি বা তার স্বজনেরা দিনের পর দিন ন্যায় বিচার হতে বঞ্চিত হয়। আবার ভালভাবে তদন্ত না করেই যাকে তাকে আসামী করে চার্জশীট দাখিল করাতে নির্দোষ অনেক ব্যক্তি ও পরিবার ধ্বংস হয়ে যায়। মামলার তদন্তকে হাতিয়ার বানিয়ে ফাসানো হয় সাধারণ মানুষকে। তাদেরকে জেল জুলুমের ভয় দেখিয়ে তাদের কাছ থেকে অবৈধভাবে অর্থ আদায় করা হয়। প্রকৃত অপরাধীদের আড়াল করে নির্দোষ ব্যক্তিকে ফাঁসানো হয়। এভাবে দিনের পর দিন চলতে থাকে তদন্ত নামের প্রহসন।

ইতিমধ্যে জনগণকে আশার আলো দেখায় পিবিআই। যে মামলায় থানার পুলিশ বা সিআইডি বছরের পর বছর ধরে কোন কুল কিনারা করতে পারছিল না সেই সব মামলায় পিবিআইয়ের হাতে ন্যস্ত হয় । অভিযোগ এই পিবিআইয়ের ময়মনসিংহের কর্মকর্তাদের ঘুষ বাণিজ্যের কারণে ভেস্তে যেতে বসেছে বাহিনিটির সুনাম । জেলার ত্রিশাল উপজেলার বহুল আলোচিত মোনায়েম হত্যা মামলায় নিরীহদের আটক করে মোটা টাকা আদায়ের অভিযোগ উঠেছে, ময়মনসিংহ পিবিআইয়ের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এবি সিদ্দিক , পুলিশ পরিদর্শক রবিউলের বিরুদ্ধে । ময়মনসিংহ সদর উপজেলার বেশ কয়েকটি দ্রুত বিচার মামলায় আসামীদের নিকট থেকে মোটা অংকের টাকা আদায়ের অভিযোগ উঠেছে । এরকম অসংখ্য অভিযোগ শোনা যাচ্ছে । যে মৃত্যুকে নিছক একটি দুঘর্টনা বলে চালিয়ে দিচ্ছিল থানার পুলিশ বা সিআইডি, সেই মামলায় পিবিআই তদন্ত করে প্রমাণিত করতে সক্ষম হয়েছে এমন নজিরর নেই ময়মনসিংহে । তিমিরেই থেকে যাচ্ছে যে এটি একটি পরিকল্পিত হত্যাকান্ড। সূত্র জানায়, খুন, ডাকাতি, অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়, চোরাচালান ও কালোবাজারি, মানব পাচার, সাইবার ক্রাইম, ধর্ষণ, অস্ত্র, বিস্ফোরক দ্রব্যসংক্রান্তসহ ১৫ ধরনের মামলা তদন্ত করতে পারে পিবিআই। ময়মনসিংহ জেলার সদর, ফুলপর, হালুয়াঘাট, ধোবাউড়া, তারাকান্দা, নান্দাইল, ঈশ্বরগঞ্জ, গৌরীপুর , ত্রিশাল, ফুলবাড়ীয়া, মুক্তাগাছা, গফরগাঁও, পাগলা, ফুলবাড়ীয়া, ভালুকাসহ ১৪ থানায় বিভিন্ন ফৌজদারি অপরাধ বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মামলার সংখ্যাও বাড়ছে। যে হারে মামলার সংখ্যা বাড়ছে, সেই হারে নিষ্পত্তি হচ্ছে না। এর অন্যতম কারণ হচ্ছে সময়মতো মামলার তদন্তকাজ শেষ না হওয়া। তাই চাঞ্চল্যকর কোনো ঘটনার তদন্ত দ্রুত শেষ করতেই নিয়োগ করা হয় ‘পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন’ (পিবিআই) নামে সংস্থাটি । পুলিশের কাজে গতিশীলতা আসবে ময়মনসিংহবাসী এমন আশাবাদী হলেও এর সুফল পাচ্ছেন না । উপরন্তু তারা দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন পিবিআই এর কর্মকর্তাদের কারণে । পিবিআই ময়মনসিংহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এবি সিদ্দিক ও পুলিশ পরিদর্শক রবিউলের সাথে যোগাযোগ করা হলে, ঘুষ বাণিজ্যেও বিষয়টি অস্বীকার করেন । তারা সুষ্ঠুভাবে কাজ করছেন বলে জানান ।


Please follow and like us:

Related posts

Leave a Comment