বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে বাঙালিকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে: রাষ্ট্রপতি

0

সিএন ডেস্ক: সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ নির্মূলের মাধ্যমে শোষণমুক্ত সমাজ-প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে বাঙালি জাতিকে আবারও ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। বর্তমান সরকার সার্বিক আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে বাংলাদেশকে একটি উন্নত ও আধুনিক দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে ঐকান্তিক প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে। বললেন রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ।

তিনি আজ (রোববার) জাতীয় সংসদের ১৯ তম ও ২০১৮ সালের প্রথম অধিবেশনে দেয়া ভাষণে এ কথা বলেন। সংসদ নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বিরোধীদলের নেতা রওশন এরশাদ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, জাতীয় সংসদ দেশের জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষার কেন্দ্রবিন্দু। স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা, মানবাধিকার ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় সরকারি দলের পাশাপাশি বিরোধীদলকেও বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করতে হবে।

আবদুল হামিদ বলেন, বৈশ্বিক ও অভ্যন্তরীণ নানা প্রতিকূলতা মোকাবেলা করে সরকার অর্থনীতির প্রবৃদ্ধির ধারাবাহিকতা ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে সক্ষম হয়েছে।

তিনি বলেন, শান্তি, গণতন্ত্র, উন্নয়ন ও সমৃদ্ধি অর্জনের যে পথ জাতি পরিক্রমণ করছে, তা দেশকে বহুদূর এগিয়ে নিয়ে যাবে।

রাষ্ট্রপতি আরো বলেন, ২০২১ সালে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে বাংলাদেশ মধ্য-আয়ের দেশে পরিণত হবে এবং ২০৪১ সালে বিশ্বসভায় একটি উন্নত দেশের মর্যাদায় অভিষিক্ত হবে, এটাই জাতির প্রত্যাশা।

আবদুল হামিদ বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একাত্তরের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণকে ইউনেস্কো বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ প্রামাণ্য ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। কালোত্তীর্ণ এই ভাষণটি ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে ন্যায় এবং মুক্তির পথে উজ্জীবিত করবে। এ স্বীকৃতি অর্জনের মধ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বলতর হয়েছে।

ভাষণের শুরুতে রাষ্ট্রপতি স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে গভীর শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করেন। তিনি বীর মুক্তিযোদ্ধা ও অমর শহিদ, চার জাতীয় নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দিন আহমেদ, এম মনসুর আলী এবং এ এইচ এম কামরুজ্জামানকে গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

ব্রেকিং নিউজঃ