চাঁপাইনবাবগঞ্জের তিন জেএমবি সদস্য অস্ত্র-বোমাসহ রাজশাহীতে গ্রেপ্তার

0

রাজশাহীতে অস্ত্র, বোমা, বোমা তৈরির নানা সরঞ্জামসহ জামায়াতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশের (জেএমবি) তিন সক্রিয় সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।

রবিবার ভোররাতে জেলার পুঠিয়া উপজেলার জামিরা গ্রামে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার তিনজন হলেন- শরিফুল ইসলাম ওরফে শরিফ (৪৫), জাকারিয়া হোসেন ওরফে জাক্কার (৪৩) ও আতাউর রহমান ওরফে আহসান হাজি।  শরিফুলের বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার চাঁদপুর গ্রামে। আর আতাউর ও জাকারিয়া একই উপজেলার চাকলা গ্রামের বাসিন্দা।

গ্রেপ্তারের পর রবিবার বেলা ১১টায় তাদের র‌্যাব-৫ এর সদর দপ্তরে সাংবাদিকদের সামনে হাজির করা হয়। সেখানে র‌্যাব-৫ এর অধিনায়ক মাহাবুবুল আলম জানান, এই তিন জঙ্গির কাছ থেকে দুটি বিদেশি পিস্তল, দুটি ম্যাগজিন, আট রাউন্ড গুলি, চারটি তাজা বোমা ও বোমা তৈরির নানা সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে।

এর মধ্যে রয়েছে ৫০০ গ্রাম গানপাউডার, তাতাল, বৈদ্যুতিক তার, রাং তার, স্কচটেপ, ৫০ গ্রাম সোডা ও সমপরিমাণ চুন। এছাড়াও তাদের কাছ থেকে জব্দ করা হয়েছে দুটি ‘জিহাদি’ বই, একটি বড় ছুরি, একটি টিআইইডি, ইয়ানতের টাকা আদায়ের সাতটি রশিদ, চারটি মুঠোফোন, পাঁচটি সিমকার্ড ও নগদ চার হাজার ৮৮০ টাকা।

র‌্যাব অধিনায়ক জানান, গত ১৮ ফেব্রুয়ারি রাজশাহীর তানোর উপজেলা থেকে তিন জেএমবি সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়। তারা র‌্যাবকে জানায়, জিয়াউর ওরফে জিয়াউল ওরফে জাকিউর ওরফে জিয়া নামে এক ব্যক্তি রাজশাহী অঞ্চলে জেএমবির দায়িত্বশীল নেতৃত্বে থেকে সংগঠনকে মাঠ পর্যায়ে সংগঠিত করার চেষ্টা করছে।

তার নেতৃত্বে সংগঠনের কিছু সদস্য রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় গোপনে মিলিত হচ্ছে এবং নাশকতার পরিকল্পনা করে যাচ্ছে। এই দলটিকে আইনের আওতায় আনতে কাজ শুরু করে র‌্যাব। একপর্যায়ে র‌্যাবের গোয়েন্দা শাখার সদস্যরা জানতে পারেন, শনিবার দিবাগত রাতে পুঠিয়ার জামিরা এলাকায় কয়েকজন জেএমবি সদস্য গোপন বৈঠকে বসেছে।

এ তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব-৫ এর একটি বিশেষ অভিযানিক দল জামিরা গ্রামের ডা. বদি নামে এক ব্যক্তির ডালের মিল ও এর আশপাশের এলাকা ঘিরে ফেলে। এ সময় র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাল মিল সংলগ্ন টিন শেড বারান্দা থেকে কয়েকজন দৌড়ে পালিয়ে যায়। তবে অস্ত্র, বিস্ফোরক ও জিহাদি বইসহ আটক করা হয় এই তিন জঙ্গিকে।

র‌্যাব অধিনায়ক মাহাবুবুল আলম আরও জানান, এই তিন জঙ্গিকেও জিজ্ঞাসাবাদ করে গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য পাওয়া গেছে। সেগুলো যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। এছাড়া পলাতক জঙ্গি জিয়াকে গ্রেপ্তারে র‌্যাব চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। আর গ্রেপ্তার এই তিন জঙ্গিকে পুঠিয়া থানায় সোপর্দ করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে অস্ত্র, বিস্ফোরক ও সন্ত্রাসবিরোধী আইনে থানায় একটি মামলাও করা হয়েছে।


তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ব্রেকিং নিউজঃ