পেরেরার ব্যাটে ভারতের ‘অশুভ’ সূচনা

0
  • নিদাহাস ট্রফির প্রথম ম্যাচে ভারতকে ৫ উইকেটে হারিয়েছে শ্রীলঙ্কা।
  •  শ্রীলঙ্কার হয়ে ৩৭ বলে ৬৬ রান কুশল পেরেরার।
  •  শার্দুলের এক ওভার থেকে ২৭ রান নেন পেরেরা।

শার্দুল ঠাকুর আরেকটু হলেই স্টুয়ার্ট বিনিকে ধরে ফেলতেন! দুই বছর আগে টি-টোয়েন্টিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে এক ওভারে ৩২ রান দিয়েছিলেন বিনি। টি-টোয়েন্টিতে ভারতের হয়ে এক ওভারে এটাই সবচেয়ে খরুচে বোলিং। প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে আজ শার্দুলকে সেই রেকর্ডের খুব কাছে পৌঁছে দিয়েছিলেন কুশল পেরেরা। শ্রীলঙ্কার ইনিংসে শার্দুলের করা তৃতীয় ওভার থেকে ২৭ রান তুলে নিয়েছেন এ লঙ্কান ব্যাটসম্যান। এর মধ্যে শেষ বলটা আবার ‘ডট’!
পেরেরা ব্যাটে রচিত ওই খুনে ওভারই বেঁধে দিয়েছে ম্যাচের গতিপথ। ভারতের ৫ উইকেটে ১৭৪ রান তাড়া করতে নেমে দ্বিতীয় ওভারেই কুশল মেন্ডিসকে (১১) হারায় শ্রীলঙ্কা। এরপর পঞ্চম ওভার পর্যন্ত চলেছে দানুস্কা গুনাতিলকা-পেরেরার তাণ্ডব। দ্বিতীয় উইকেটে মাত্র ২২ বলে ৫৮ রানের জুটি গড়ার পথে শ্রীলঙ্কাকে মাত্র ৩.৪ ওভারে ৫০ ফিফটির কোঠা ছুঁইয়ে দেন দুই ব্যাটসম্যান। তাঁদের জুটিতে পেরেরার অবদান ১৩ বলে ৩৭, গুনাতিলকা ৯ বলে ১৮।
পঞ্চম ওভারের শেষ বলে জয়দেব উনাদকাট গুনাতিলকাকে (১৯) ফেরালেও পেরেরা তাণ্ডব চলেছে ১২.৩ ওভার পর্যন্ত। এর মধ্যে ৯.৪ ওভারেই ১০০ রানের দলীয় স্কোর পেয়ে যায় স্বাগতিকেরা। কিন্তু যুজবেন্দ্র চাহালের বলে ফিরে যান অধিনায়ক দিনেশ চান্দিমাল (১৪)। তার আগে পেরেরার সঙ্গে তৃতীয় উইকেটে যোগ করেন ২৩ বলে ২৮ রানের জুটি।
পেরেরা যতক্ষণ উইকেট ছিলেন, ততক্ষণ শ্রীলঙ্কাকে রান নিয়ে ভাবতে হয়নি। তার ব্যাটিংয়ে ৬ ওভারে ২ উইকেটে ৭৫ রান তুলেছে শ্রীলঙ্কা, টি-টোয়েন্টি সংস্করণে পাওয়ার-প্লেতে এটাই দলটির সর্বোচ্চ স্কোর। ১৩তম ওভারে ওয়াশিংটন সুন্দরকে উইকেট দেওয়ার আগে ৪ ছক্কা ও ৬ বাউন্ডারিতে ৩৭ বলে ৬৬ রানের বিস্ফোরক ইনিংস খেলেন সনাথ জয়াসুরিয়ার ‘ক্লোন’ নামে পরিচিত এ ব্যাটসম্যান। এর মধ্যে ২২ বলে তুলে নিয়েছেন ফিফটি।
পেরেরা যখন আউট হন, জয় থেকে তখন ৪৫ বলে ৪৮ রানের ‘সহজ’ দূরত্বে পিছিয়ে ছিল শ্রীলঙ্কা। লক্ষ্যটা আরেকটু কঠিন হয়ে পড়ে ১৫তম ওভারে উপুল থারাঙ্গা আউট হলে। ম্যাচের পরিস্থিতির দাবি মিটিয়ে ব্যাটিং করতে পারেননি ১৮ বলে ১৭ রানের ইনিংস খেলা থারাঙ্গা। শেষ ৩ ওভারে জয়ের জন্য ২৪ রান দরকার ছিল শ্রীলঙ্কার। উইকেটে ছিলেন থিসারা পেরেরা ও দাসুন শানাকা। উনাদকাটের করা ১৮তম ওভারে ১৬ রান নিয়ে পেরেরা-শানাকা জুটি ম্যাচটা বলতে গেলে তখনই শেষ করে দেন। 
বাকি ছিল শুধু আনুষ্ঠানিকতা। জেতার জন্য দরকার ছিল ৮ রান। পরের ওভারে ৩ বল হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে নোঙর করেন পেরেরা (২২) শানাকা (১৫)। ৯ বল হাতে রেখে ৫ উইকেটের এ জয়ে নিদাহাস ট্রফিতে শুভ সূচনা করল শ্রীলঙ্কা। অন্যদিকে, রোহিত শর্মার নেতৃত্বে ভারতের শুরুটা হলো হার দিয়ে।
বিরাট কোহলি ও মহেন্দ্র সিং ধোনির অনুপস্থিতিতে ভারত কি কিছুটা অনভিজ্ঞতায় ভুগছে? সে জন্যই কি লড়াকু স্কোর গড়েও এই ‘অশুভ’ সূচনা? ১৭৪ রানের পুঁজি নিয়েও কিন্তু লঙ্কানদের সামনে সেভাবে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারেননি ভারতীয় বোলাররা। পরিসংখ্যানও বলছে, টি-টোয়েন্টিতে খেলোয়াড়দের মোট ম্যাচ বিচারে ভারতের স্কোয়াড এ টুর্নামেন্টে সবচেয়ে অনভিজ্ঞ! এ সংস্করণে ভারতীয় স্কোয়াডের সব খেলোয়াড়ের মোট ম্যাচসংখ্যা ২৫৭, শ্রীলঙ্কার ২৯৩ এবং ৩৪১ ম্যাচের অভিজ্ঞতা ঝুলিতে পুরে বাংলাদেশের স্কোয়াড সবচেয়ে অভিজ্ঞ!

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

ব্রেকিং নিউজঃ