লিটনকে ভুলে গেলে চলবে না

0

মুশফিকুর রহিমের ইনিংসে মাত গোটা বাংলাদেশ। সত্যিই প্রশংসিত হওয়ার মতোই ব্যাটিং। ম্যাচ জেতানো ইনিংস হলেও প্রশ্ন হলো, এই জয়ের ভিত্তিটা কী মুশফিকের গড়া?

ভ্রুকুটির কিছু নেই। মুশফিকের অবদানকে এতটুকু খাটো না করেও বলা যায়, বাংলাদেশের জয়ের ভিত্তি গড়েছেন দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও লিটন দাস। বিশেষ করে লিটনের কথা না বললেই নয়। ২১৪ রানে জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে বাংলাদেশ উড়ন্ত সূচনা পেয়েছে লিটনের ১৯ বলে ৪৩ রানের ‘টর্নেডো’ ইনিংসে। কিন্তু প্রথম ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে তিনে নামা লিটনকে কেন ওপেনিংয়ে পাঠানো হলো?
প্রেমাদাসায় কাল মাঠে নামার আগে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সীমিত সংস্করণে সর্বশেষ চার ম্যাচেই হেরেছে বাংলাদেশ। এর মধ্যে ঘরের মাঠে সর্বশেষ টি-টোয়েন্টি সিরিজে ‘পাওয়ার প্লে’তে উইকেট বিলিয়ে দেওয়ার রোগে পেয়েছিল স্বাগতিকদের। লঙ্কান স্পিনার আকিলা ধনঞ্জয়ায় ঘূর্ণিতে থিতু হতে পারেনি তামিম-সৌম্যর জুটি।
লঙ্কান টিম ম্যানেজমেন্ট ভেবেছিল, কালও হয়তো তামিমের সঙ্গে সৌম্য ওপেন করবেন। আর তাই বরাবরের মতোই ধনঞ্জয়াকে দিয়ে শুরুতে আনার পরিকল্পনা ছিল তাঁদের। লঙ্কানদের এই ‘গেম-প্ল্যান’ জানা ছিল বাংলাদেশের। তার ‘প্রতিষেধক’ হিসেবে তামিমের সঙ্গে ওপেনিংয়ে পাঠানো হয় লিটনকে। টি-টোয়েন্টিতে দেশের হয়ে প্রথমবারের মতো লিটনের ওপেন করতে নামার ‘প্রতিষেধক’ কতটুকু কাজে লেগেছে, স্কোরকার্ড তার প্রমাণ—ওপেনিং জুটি ৫.৫ ওভারে বিচ্ছিন্ন হওয়ার আগে ৭৪ রান উঠেছে! 
সেখানে তামিমের অবদান ১৬ বলে ২৭ আর লিটনের অবদান ১৯ বলে ৪৩। ৫ ছক্কা ও ২ বাউন্ডারিতে ইনিংসটি সাজান লিটন। খেলেছেন দেখার মতো কিছু শট। দ্বিতীয় ওভারে প্রথম তিন বল ‘ডট’ যাওয়ার পর কিছুটা চাপে পড়েছিলেন লিটন। কিন্তু পরের বলেই ধনঞ্জয়াকে মিড উইকেটের ওপর দিয়ে ছক্কা মেরে চাপের খোলস ভাঙেন। এরপর নুয়ান প্রদীপের ওভারেও একই জায়গা দিয়ে মেরেছেন দর্শনীয় ছক্কা।
দ্বিতীয় থেকে ষষ্ঠ—এই পাঁচ ওভারেই একটি করে ছক্কা মেরেছেন লিটন। সঙ্গে বাউন্ডারিও ছিল। মূলত লিটনের এই বিস্ফোরক ইনিংসেই জয়ের দ্বার খুলে যায় বাংলাদেশের।
লিটনকে ওপেনিংয়ে পাঠানোর নেপথ্যে ‘গেম-প্ল্যান’টা জয়ের পর ব্যাখ্যা করলেন তামিম, ‘আমরা জানতাম অফ স্পিনের মুখোমুখি হয়ে শুরু করতে হবে। এ কারণেই আমরা লিটনকে ওপরে তুলে এনেছি। পরিকল্পনাটা তাঁদের নয়, আমাদের কাজে লেগেছে।’
দুই শর বেশি রান তাড়া করতে ভালো শুরু গুরুত্বপূর্ণ। তামিম-লিটন মিলে দুর্দান্ত শুরু এনে দিয়েছেন দলকে। জেতার আত্মবিশ্বাসটা যে এই ভালো শুরু থেকেই এসেছে তামিম সেটাও বললেন, ‘সবাই ভেবেছিল, প্রথম ৬ ওভারে ভালো শুরু পেলে এবং মাঝে ভালো ব্যাটিং করলে যেকোনো কিছুই সম্ভব। লিটন ও আমার প্রথম ছয় ওভারে ব্যাটিং দারুণ ছিল। এরপর মুশি, সৌম্য, রিয়াদ মাঝে দারুণ করেছে।’

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ব্রেকিং নিউজঃ