খালেদা জিয়ার জন্য ব্রিটিশ আইনজীবী নিয়োগ

0

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বন্দি বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের পরামর্শ দিতে ব্রিটেনের এক আইনজীবী নিয়োগ দেয়া হয়েছে। ব্রিটেনের এই আইনজীবীর নাম লর্ড কারলাইন। তিনি খালেদা জিয়ার মামলায় সব ধরণের আইনি পরামর্শ দেবেন, সেই সাথে প্রয়োজনে তিনি বাংলাদেশেও আসবেন।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর মঙ্গলবার (২০ মার্চ) নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, লর্ড কারলাইন আন্তর্জাতিক আইন মেনেই খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের পরামর্শ দেবেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, তিনি (লর্ড কারলাইন) দীর্ঘদিন ধরে ব্রিটেনের রাজনীতি ও আইন পেশার সঙ্গে জড়িত। প্রয়োজনে তিনি বাংলাদেশেও আসতে পারেন। আমরা (বিএনপি) তাকে পেয়ে আনন্দিত।

তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়ার মামলায় আইনি পরামর্শ দেয়ার জন্যই ব্রিটেনের প্রখ্যাত আইনজীবী লর্ড কার্লাইলকে অনুরোধ করা হলে তিনি আমাদের আইনজীবী প্যনেলের সঙ্গে যোগ দিতে সম্মতি জানান। তিনি এখন থেকে খালেদা জিয়ার পক্ষে মামলায় পরামর্শ দেবেন। তিনি প্রখ্যাত এ আইনজীবী হাউস অব লর্ড্সের সদস্য।’

লর্ড কার্লাইল মূলত কী বিষয়ে কাজ করবেন সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের উত্তরে মির্জা ফখরুল বলেন, তিনি খালেদা জিয়ার মামলায় আইনি পরামর্শের সঙ্গে সঙ্গে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার ঠিক থাকছে কি না, তা দেখভাল করবেন। 

ব্রিটিশ এই আইনজীবী দীর্ঘ ২৮ বছর খণ্ডকালীন বিচারকের দায়িত্ব পালন করেছেন জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব জানান, তিনি উচ্চ আদালতের বিচারক হিসেবেও যুক্ত ছিলেন। এ ছাড়া তিনি নয় বছরের বেশি সময় ধরে যুক্তরাজ্যে সন্ত্রাসবিরোধী আইনের স্বাধীন সমালোচক ছিলেন। ২০১২ সালে রানি কর্তৃক নিয়োগপ্রাপ্ত হয়ে জাতীয় নিরাপত্তা পরিষেবার জন্য কাজ করেছেন।

কেন ব্রিটিশ এ আইনজীবীকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিশ্ব সম্প্রদায়ের কাছে খালেদা জিয়ার মামলা ও সাজার বিষয়ে তুলে ধরতে কাজ করবেন লর্ড কার্লাইল।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান ঢালী, আবদুস সালাম, জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, সহসাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদ।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ডাদেশ দেন আদালত। একই সঙ্গে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ পাঁচ আসামিকে ১০ বছর করে কারাদণ্ড এবং আসামিদের দুই কোটি ১০ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। রায় ঘোষণার পর পুরান ঢাকার পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারকে বিশেষ কারাগার ঘোষণা দিয়ে খালেদা জিয়াকে সেখানে রাখা হয়।

এর পর গত ১২ মার্চ খালেদা জিয়াকে চার মাসের জামিন দেন হাইকোর্ট। হাইকোর্টের দেয়া চার মাসের জামিন স্থগিত চেয়ে পরের দিন রাষ্ট্রপক্ষ ও দুদক আবেদন করে। পরে ১৪ মার্চ আপিল বিভাগ গতকাল রোববার পর্যন্ত জামিনের স্থগিতাদেশ দেন। পরদিন ১৫ মার্চ আপিল বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান জামিনের বিরুদ্ধে লিভ টু আপিল দায়ের করেন।

গতকাল সোমবার সকালে খালেদা জিয়াকে হাই কোর্টের দেয়া ৪ মাসের জামিন ৮ মে পর্যন্ত স্থগিত করে আপিল বিভাগ।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

ব্রেকিং নিউজঃ