কারাগারে খালেদার সুযোগ-সুবিধায় ‘সন্তুষ্ট’ বিএনপি নেতারা

0

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে যেসব সুযোগ সুবিধা দেয়া হচ্ছে, সে বিষয়ে দলটির নেতাদের কোনো অভিযোগ নেই বলে দাবি করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। তার সঙ্গে দেখা করতে আসা তিন বিএনপি নেতা এই কথা বলেছেন বলে দাবি করেন মন্ত্রী।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় পাঁচ বছরের কারাদণ্ড হওয়ার পর খালেদা জিয়াকে পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে নেয়া হয়। কারাগারে যাওয়ার তিন দিন পর তাকে ডিভিশন দেয়া হয় আদালতের নির্দেশে।

এর আগ অবধি বিএনপি নেতারা খালেদা জিয়ার সুযোগ সুবিধা নিয়ে নানা অভিযোগের কথা বলে আসছিলেন।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দপ্তরে মন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে আসেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের প্রতিনিধি দল। অন্য দুই নেতা হলেন বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলতাফ হোসেন চৌধুরী এবং সাবেক পানিসম্পদমন্ত্রী হাফিজউদ্দিন আহমেদ।

বিএনপি নেতারা মন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে যান মূলত সোহরাওয়ারাদী উদ্যানে জনসভার অনুমতির বিষয়ে আলোচনা করতে। গত ২২ ফেব্রুয়ারি, ১২ মা্চ এবং ১৯ মার্চ তিন দফা ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনারের কাছে এই ময়দানে জনসভার অনুমতি চেয়ে পায়নি বিএনপি।

আগামী ২৯ মার্চ আবারও জনসভার তারিখ আছে বিএনপির। এইবার যেন অনুমতি মেলে সে নিয়েই মূলত আলোচনা হয়।

তবে এর বাইরেও বিএনপির নেতা-কর্মীদেরকে অকারণে গ্রেপ্তারের অভিযোগ, নারী কর্মীদের গ্রেপ্তার না করার আহ্বানও জানান তিন নেতা।

এ সময় কারাবন্দি খালেদা জিয়াকে নিয়েও কথা হয় ৪০ মিনিটের বৈঠকে। বৈঠক শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলোচনার বিষয়বস্তু জানান। তিনি জানান, বৈঠকে খালেদা জিয়ার সুযোগ সুবিধা নিয়ে বিএনপি নেতারা তাদের সন্তুষ্টির কথা বলে গেছেন।

‘তারা বলেছেন যে, আপনারা যে কারাগারে যে ‘ই’ দিচ্ছেন এতে আমরা সন্তুষ্ট। এটাও বলে গিয়েছেন। তিনি (খালেদা জিয়া) যেভাবে আছেন আপনারা সব কিছুই ব্যবস্থা করেছেন।’

‘আমরা বলছি যে আমাদের জেলকোড অনুযায়ী যে সমস্ত ব্যাবস্থা থাকা দরকার আমরা এনশিউর (নিশ্চিত)করেছি যে, সবগুলো তিনি যাতে পান সেই ব্যবস্থাটা করেছি।’

বৈঠক শেষে বিএনপির প্রতিনিধি দলের নেতা নজরুল ইসলাম খান অবশ্য নানা বিষয় নিয়ে কথা বললেও তাদের নেত্রীর কারাগারে থাকার বিষয়ে কিছু জানাননি গণমাধ্যমকর্মীদেরকে।

তবে যে উদ্দেশ্য নিয়ে বিএনপি নেতারা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে গিয়েছিলেন, সে বিষয়ে সুনির্দিষ্ট ঘোষণা আসেনি। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়ে দেন, এই অনুমতি দেবেন ঢাকার পুলিশ কমিশনার। তবে কেন বিএনপিকে অনুমতি দেয়া হচ্ছে না, সে বিষয়ে তিনি জানতে চাইবেন এবং বিএনপিকে তা জানাবেন।

বিএনপি নেতা-কর্মীদের যাদেরকে ধরা হচ্ছে তাদের সবার বিরুদ্ধেই সুনির্দিষ্ট অভিযোগ আছে বলেও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানান বিএনপি নেতাদেরকে। নারী কর্মীদেরকে অকারণে হয়রানি করা হবে না বলে আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ব্রেকিং নিউজঃ