জিয়া খুনী, স্ত্রী খুনী, ছেলেও খুনী

0

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘বাংলাদেশ যখন সারাবিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল হয়েছে। বাংলাদেশ যখন এগিয়ে যাচ্ছে। তখন বিদেশে বসে কিছু কিছু মহল বাংলাদেশের বিরুদ্ধে চক্রান্ত করছে। এই লন্ডনে বসে একজন রিফিউজিটি যে দন্ডিত আসামী সে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপপ্রচারে লিপ্ত। তিনি কীভাবে একটা দলের চেয়ারপারসন হয়!’

প্রধানমন্ত্রী বিএনপির কঠোর সমলোচনা করে বলেন, ‘এই দলটি বাংলাদেশের বিরুদ্ধে এবং বাংলাদেশের উন্নতির বিরুদ্ধে প্রচারণায় ব্যস্ত।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন বানিয়েছে একজন খুনীকে। সাজাপ্রাপ্ত কীভাবে একটা দলের চেয়ারপারসন হয়? তার সঙ্গে আবার যোগ দিয়েছে যুদ্ধাপরাধীদের সন্তানদের সঙ্গে। যারা দূর্নীতি করে। টাকা পয়সা উপার্জন করে।’

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, আমি ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে কথা বলেছি। তাকে ফিরিয়ে নেয়ার জন্য উদ্যোগ নিয়েছি। এটাকে যেভাবেই হোক বাংলাদেশে ফেরত নিবো এবং আইনের আওতায় তাকে নিয়ে আসা হবে। আইনের যে সাজা তা তার অবশ্যই ভোগ করতে হবে। ‘

এ সময়ে প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের বিভিন্ন অমিমাংসিত বিষয়ে সমাধানের প্রতি ইঙ্গিত করে বলেন ,জিয়া, এরশাদ, খালেদা জিয়া কেউই ভারতের সঙ্গে কথা বলার সাহস পায়নি। আমরা ক্ষমতায় এসে ছিটমহল ইস্যুর সমাধান করেছি। আমরা ভারত এবং মায়ানমারের সঙ্গে সমুদ্র বিরোধ মিমাংসা করেছি। কারও সঙ্গে শত্রুতা নয়, সকলের সঙ্গে বন্ধুত্ব। এই নীতি অনুসরণ করে আমরা আমাদের সকল সমস্যা সমাধান করতে পেরেছি। নৌকা মার্কায় ভোট দিলেই দেশের উন্নতি হয়। বাংলাদেশ এগিয়ে যায়। বাংলাদেশ যে আজ এগিয়ে যাচ্ছে তা আমাদের চেয়ে আপনারা যারা বিদেশে থাকেন তারাই ভালো বলতে পারবেন। এইজন্যই বাংলাদেশের এ অগ্রযাত্রা অগ্রগতি যেন অব্যাহত থাকে। সেজন্য আপনাদের দায়িত্ব নিতে হবে। ‘

তিনি বলেন, ‘যারা যুক্তরাজ্য এবং বিদেশে বসে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে প্রচারণা করছে। চক্রান্ত করছে। তাদের বিরুদ্ধে আপনাদের সোচ্চার হতে হবে। ‘

আজ যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে দশটায় যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের সংবর্ধণা অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

ব্রেকিং নিউজঃ