প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অস্ট্রেলিয়ার সেরা জ্ঞান আহরণের আহ্বান জানিয়েছেন

0

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ফাইল ছবি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অস্ট্রেলিয়ার সেরা জ্ঞান আহরণের সুযোগ গ্রহণের জন্য সেখানে অধ্যয়নরত বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী ওয়েস্টার্ন সিডনি ইউনিভার্সিটি (ডব্লিউএসইউ) পরিদর্শনকালে পরমাত্মা সাউথ ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে প্রদত্ত ভাষণে এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের উচ্চতর শিক্ষার জন্য অস্ট্রেলিয়া একটি প্রিয় গন্তব্যস্থল। প্রায় ২০০ শিক্ষার্থী ওয়েস্টার্ন সিডনি বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়ন করছেন। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ এলডিসি থেকে গ্র্যাজুয়েশনের মাধ্যমে উন্নয়নের পরবর্তী পর্যায়ে চলে যাচ্ছে, আমাদের আরও বেশি মানবিক ক্ষমতা দরকার। অস্ট্রেলিয়া এ ক্ষেত্রে প্রশিক্ষকদের প্রশিক্ষণ দান এবং বৃত্তিমূলক শিক্ষায় প্রশিক্ষণ দিয়ে অবদান রাখতে পারে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও সভাপতি প্রফেসর বার্নি গ্লোভার, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের একটি বড় অংশ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিল।

শেখ হাসিনা বলেন, ডব্লিউএসইউ বর্তমানে বাংলাদেশ সরকারের বিচার ব্যবস্থাপনার সক্ষমতা বৃদ্ধিতে এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমুদ্রবিজ্ঞান বিভাগ ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য প্রশিক্ষণ দান কর্মসূচির মাধ্যমে সহায়তা প্রদান করছে। বাংলাদেশ উদ্ভাবনী অর্থায়ন, উন্নততর প্রযুক্তি হস্তান্তর নিশ্চিত, আন্তখাত অংশীদারত্ব জোরদার এবং অস্ট্রেলিয়ার সহযোগিতায় অন্তর্ভুক্তিমূলক ও গণমুখী নীল অর্থনীতির উন্নয়নের সামর্থ্য বাড়ানোর পরিকল্পনা করছে। তিনি মেরিন অ্যাকুয়া কালচারের উন্নয়নে কারিগরি সহযোগিতা এবং সমুদ্রবিজ্ঞান বিভাগের জন্য শিক্ষক আদান-প্রদানের সহযোগিতার আহ্বান জানান।

শেখ হাসিনা বলেন, তাঁর জন্য এই ওয়েস্টার্ন সিডনি বিশ্ববিদ্যালয় ভ্রমণ খুবই আনন্দদায়ক হয়েছে এবং এই বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আবক্ষ মূর্তি স্থাপিত হয়েছে দেখে তিনি অভিভূত। তিনি বলেন, ১৯৭৪ সালেই জাতীয় সংসদে আইন করে সমুদ্রসীমা নির্দিষ্টকরণের দূরদৃষ্টি এবং অগ্রণী ভূমিকার স্বীকৃতিস্বরূপ বঙ্গবন্ধুর আবক্ষ মূর্তিটি যথার্থই ইনস্টিটিউট অব ওশান গভর্নেন্সের (আইসিওজি) সামনে স্থাপন করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে অস্ট্রেলিয়ার সহযোগিতার কথা স্মরণ করে বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনের পরে ১৯৭২ সালের ৩১ জানুয়ারি অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দানের পর থেকেই দুই দেশের মধ্যে উষ্ণ আন্তরিকতাপূর্ণ সম্পর্ক বিদ্যমান রয়েছে। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ এবং অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে খুবই মৌলিক দ্বিপক্ষীয় এই সম্পর্কের শুরু তখন থেকেই কারণ উন্নত বিশ্বের দেশগুলোর মধ্যে অস্ট্রেলিয়াই বাংলাদেশকে স্বীকৃতি প্রদানকারী প্রথম দেশ।’

প্রধানমন্ত্রী এ সময় বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ এবং জাতি গঠনের প্রারম্ভিক দিনগুলোয় সহায়তা প্রদানকারী হিসেবে সাবেক অস্ট্রেলীয় প্রধানমন্ত্রী এডওয়ার্ড গফ হোয়াইটলাম এবং বিশ্ব নেতৃবৃন্দের প্রতিও শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। অস্ট্রেলিয়ার তৎকালীন ফেডারেল সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা হোয়াইটলাম বাংলাদেশের স্বপক্ষে দ্বিদলীয় ঐকমত্য গঠনে নেতৃস্থানীয় ভূমিকা পালন করেন উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী যুদ্ধের সময় পাকিস্তানিদের অধীনে হানাদার ও তাদের সহযোগীদের নিপীড়নে বাঙালিদের দুঃখ-দুর্দশার প্রতি দৃষ্টি দেওয়ার বিষয়টি স্মরণ করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এডওয়ার্ড হোয়াইটলাম বাংলাদেশের জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এবং কমনওয়েলথের স্বীকৃতি আদায়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। এডওয়ার্ড হোয়াইটলাম ১৯৭৫ সালের ১৯ জানুয়ারি বাংলাদেশ সফর করেন। কোনো অস্ট্রেলীয় প্রধানমন্ত্রীর এটিই বাংলাদেশে প্রথম ও শেষ সফর।

প্রধানমন্ত্রী তাঁর ভাষণে মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অবদানের জন্য অস্ট্রেলীয় নাগরিক উইলিয়াম এ এস অউডারল্যান্ডকেও শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন। মুক্তিযুদ্ধে অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ তাঁকে বীরত্বপূর্ণ খেতাব ‘বীর প্রতীক’ এবং ‘ফ্রেন্ডস অব বাংলাদেশ ওয়ার অব লিবারেশন ১৯৭১’ সম্মাননায় ভূষিত করা হয়েছে। তিনি অনুষ্ঠান আয়োজনে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এবং অনুষদ সদস্যদের ধন্যবাদ জানান।

পরে প্রধানমন্ত্রী ডব্লিউএসইউ ক্যাম্পাসে স্থাপিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্যে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ব্রেকিং নিউজঃ