মেয়েকে হত্যা করে জামাইকে নিয়ে পালালেন মা!

0

পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলায় মেয়েকে বিষ পান করিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে তার মা নার্গিস বেগম (৩৫) ও জামাই মামুন ঢালির (৩০) বিরুদ্ধে। ওই ঘটনার পর থেকে নার্গিস ও মামুনের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। আজ সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ওই দুজনকে খুঁজে পায়নি পুলিশ।

নিহত মোছা. মালা বেগম (২০) বাউফলের মদনপুরা ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা ছিলেন।

নিহত মালা বেগমের চাচা হেলাল হাওলাদারের অভিযোগ, মামুনের সঙ্গে তার শাশুড়ী নার্গিস বেগমের পরকীয়ার সম্পর্ক ছিল। এ বিষয়টি হাতেনাতে ধরে ফেলায় মালাকে বিষ পান করিয়ে হত্যা করেন তারা দুজন। এ ঘটনার পর থেকে তারা পলাতক আছেন।

হেলাল হাওলাদার জানান, পাঁচ বছর আগে মামুনের সঙ্গে মালার পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে মালা শ্বশুর বাড়িতেই থাকতেন। সম্প্রতি মালার বাবা মারা যান। এর পর থেকে মায়ের দেখভাল করতে মামুনকে নিয়ে মালা বাবার বাড়িতে স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন। কিছু দিন আগে নার্গিস বেগমের সঙ্গে মামুনের পরকীয়ার সম্পর্কের বিষয়টি বুঝতে পারেন মালা।

হেলাল হাওলাদার আরও জানান, জামাইয়ের সঙ্গে নার্গিস বেগমের সম্পর্কের বিষয়টি এলাকার লোকজনও জানত। গত বুধবার রাতে নার্গিস বেগম ও মামুনের সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্কের বিষয়টি হাতেনাতে ধরে ফেলেন মালা। বিষয়টি নিয়ে তাদের মধ্যে ঝগড়াও হয়। ওই রাতেই খাবারের সঙ্গে মালাকে বিষপান করায় তার মা নার্গিস বেগম ও স্বামী মামুন। পরে তারাই মালাকে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। হাসপাতালে নিয়ে গেলে ডাক্তাররা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। মেয়ের লাশ হাসপাতালে রেখেই নার্গিস বেগম তার জামাই মামুনকে নিয়ে পালিয়ে যান। পরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বিষয়টি পুলিশকে জানায়।

লাশের সুরাতল প্রতিবেদন ও ময়নাতদন্তের পর গত বৃহস্পতিবার দুপুরে চাচা হেলাল হাওলাদারের কাছে মালার লাশ হস্তান্তর করে পুলিশ। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বাউফলের মদনপুরা ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডে মালার পৈত্রিক বাড়িতে দাফন করা হয়।

এ বিষয়ে বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জেনেছি, শাশুড়ির সঙ্গে জামাইয়ের পরকীয়ার সম্পর্ক ছিল। বিষয়টি নিয়ে অনুসন্ধান চলছে। ময়নাতদন্ত ও ভিসেরা প্রতিবেদন হাতে পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

পূর্বপশ্চিম ডেস্ক
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

ব্রেকিং নিউজঃ