মাদকবিরোধী অভিযান চলবে : প্রধানমন্ত্রী

0

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জনগণের শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদকবিরোধী অভিযান অব্যাহত থাকবে। আমরা একটি মাদক, জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ মুক্ত দেশ গঠন করতে চাই।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে অন্যায়-অবিচারের কোনো ঠাঁই হবে না। তার সরকার জনগণের শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে চায়।

বুধবার (৬ জুন) সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রী সারাদেশের আইনজীবীদের সম্মানে তার সরকারি বাসভবন গণভবনে আয়োজিত ইফতারের পূর্বে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘বর্তমান সরকার আমরা আশা করে বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশে পরিণত হবে। আর এভাবে আমরা দেশ গঠন করতে চাই।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিচার সম্পন্ন এবং যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু করার মাধ্যমে দেশকে কলঙ্কমুক্ত করেছি।’

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার পর পরই যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু করেছিলেন, কিন্তু স্বৈরশাসক জিয়াউর রহমান অবৈধভাবে রাষ্ট্র ক্ষমতা দখল করার পর সেই বিচার বন্ধ করে দেন।

সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমুখী কর্মকাণ্ড তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, সরকারের বাস্তবমুখী কর্মসূচির কারণে বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তীর্ণ হয়েছে। বাংলাদেশ এখন বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল। আমরা এ সাফল্য ধরে রাখতে চাই।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জি-৭ রাষ্ট্রগুলো কানাডায় অনুষ্ঠেয় তাদের আসন্ন শীর্ষ সম্মেলনে তাকে আমন্ত্রণ জানিয়েছে। আমি কাল সেখানে যাব। তারা বাংলাদেশের অবস্থা সম্পর্কে জানতে চেয়েছে। তারা বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের পেছনের ম্যাজিক সম্পর্কে জানতে চেয়েছে।

বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া ১১ লাখ রোহিঙ্গা সম্পর্কে শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ তাদের শুধু আশ্রয়ই দেয়নি, তাদের খাদ্য ও স্বাস্থ্যসেবাও দিচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘পুরো বিশ্ব এবং আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো বাংলাদেশের পাশে দাঁড়িয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের সময়ও আমরা সমগ্র বিশ্বকে পাশে পাইনি। কেউ আমাদের পাশে ছিল কেউ ছিল না। কিন্তু এবার আমরা সবাইকে পাশে পেয়েছি।’

সারাদেশে বিভিন্ন বার কাউন্সিল নির্বাচনে বিজয়ের জন্যে সরকারপন্থী আইনজীবীদের অভিনন্দন জানিয়ে শেখ হাসিনা তাদের আগামী দিনগুলোতেও বিজয়ের এ ধারা অব্যাহত রাখার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘আপনাদের বিজয় বলে যে ঐক্যবদ্ধ থাকলে আমরা জয়ী হতে এবং যেকোন পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে পারি।’

এর আগে প্রধানমন্ত্রী আমন্ত্রিত অতিথিদের বিভিন্ন টেবিলে গিয়ে তাদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন এবং তাদের খোঁজ-খবর নেন।

ইফতারের আগে দেশ ও জাতির শান্তি, অগ্রগতি ও সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়।

জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের পেশ ইমাম মাওলানা এহসানুল হক মোনাজাত পরিচালনা করেন।

এসময় মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম, সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ, বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল বাসেত মজুমদার, ব্যারিস্টার ইউসুফ হোসেন হুমায়ূন, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন, আইন সম্পাদক শ. ম. রেজাউল করিম, সাবেক বিচারপতি মেসবাহ উদ্দিন, অ্যাডভোকেট সৈয়দ রেজাউর রহমান, ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস।

এর আগে, সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ বার কাউন্সিল, ঢাকা জেলা বার অ্যাসোসিয়েশন, রাজশাহী জেলা বার অ্যাসোসিয়েশন, সিলেট জেলা বার অ্যাসোসিয়েশন, গাজীপুর জেলা বার অ্যাসোসিয়েশন, দিনাজপুর জেলা বার অ্যাসোসিয়েশন, শরিয়তপুর জেলা বার অ্যাসোসিয়েশন ও লালমনিরহাট জেলা বার অ্যাসোসিয়েশনের নবনির্বাচিত কর্মকর্তাগণ প্রধানমন্ত্রীকে ফুলের তোড়া দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ব্রেকিং নিউজঃ