খালেদার আচরণে প্রধানমন্ত্রীর বিস্ময়

0

বেগম জিয়ার স্বাস্থ্যের খোঁজ নিলেন প্রধানমন্ত্রী। বেগম জিয়া সি.এম.এইচে যেতে রাজী না- এটা জেনে প্রধানমন্ত্রী বিস্ময় প্রকাশ করলেন। প্রধানমন্ত্রী বললেন ‘ সিএমএইচে যখন যেতে চায় না তখন অন্য মতলব আছে।’ সরকারের একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র এ খবর নিশ্চিত করেছে। সংশ্লিষ্ট সুত্র গুলো জানিয়েছে, সরকার বেগম জিয়ার একগুয়েমীর কাছে নতি স্বীকার করবে না ।

ঈদের পরদিনই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বেগম জিয়ার স্বাস্থ্যের ব্যাপারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেন। তিনি চারজন চিকিৎসকের দেয়া রিপোর্ট সম্পর্কেও বিস্তারিত তথ্য নিয়েছেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর আসাদুজ্জামান খান কামাল জানিয়েছেন যে, বেগম জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে বিএনপি গুজব ছড়াচ্ছে। তিনি জেল কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে ঈদের দিন আত্মীয় স্বজনের সঙ্গে বিএনপির চেয়ারপারসনের সাক্ষাতের বিবরণ প্রধানমন্ত্রীকে জানান। অসুস্থ মানুষ দেড় ঘন্টা এভাবে গল্পগুজব করতে পারেন না। সূত্র মতে, প্রধানমন্ত্রী জানতে চান, সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে বেগম জিয়া যেতে চান না কেন? এটা বাংলাদেশের সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য হাসপাতাল। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, আমরা তো অনেক ক্রিটিক্যাল রোগীকে এখানে এনে সুস্থ করেছি। এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী , রাশেদ খান মেনন থেকে শুরু করে সাম্প্রতিক সময়ে ড: জাফর ইকবালের প্রসঙ্গ টানেন। সূত্রমতে, প্রধানমন্ত্রী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে বলেছেন,‘রাজনীতির মাঠ গরম করতেই বেগম জিয়া অসুস্থতার ইস্যুকে সামনে আনা হচ্ছে। এটা নিয়ে বিএনপি রাজনীতি করতে চাইছে।’ সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর সংগে একমত পোষণ করেছেন।

একটি সূত্র বলছে, কারা বিধি অনুযায়ী, জেল কর্তৃপক্ষ কাউকে অসুস্থ মনে করলে তাঁর উপযুক্ত চিকিৎসার জন্য সবকিছু করতে পারে। এক্ষত্রে কারাবন্দীর অনিচ্ছার পরও তাকে হাসপাতালে চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে পারে। জেল কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, কারাগারে অনশনরত ব্যক্তিকে জোর করে খাওয়াতে পারে জেল কর্তৃপক্ষ। তেমনি জেল কর্তৃপক্ষ যদি মনে করে, নির্দিষ্ট কারাবন্দীর সুচিকিৎসা প্রয়োজন, সেক্ষেত্রে সুচিকিৎসার জন্য কারাবন্দীর সম্মতি ছাড়াই তাকে যেকোন হাসপাতালে নিয়ে যেতে পারে।

একটি সূত্র জানিয়েছে, বেগম জিয়ার ব্যক্তিগত পছন্দের চিকিৎসক যে সব পরীক্ষার সুপারিশ করেছে সরকার সেই পরীক্ষার জন্য দ্রুতই সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে নিয়ে যাবে। এক্ষেত্রে তাঁর ইচ্ছেকে গুরুত্ব দেওয়া হবে না। কারণ, কারাবিধি অনুযায়ী কারাবন্দির দেখভাল ও সুস্বাস্থ্য রক্ষার দায়িত্ব জেল কতৃপক্ষের। আগামীকাল বেগম খালেদা জিয়াকে শেষবারের মতো অনুরোধ করা হবে। এতে অসম্মতি জানালে তাঁকে কারাবিধি অনুযায়ী চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হবে বলে কারাসূত্র নিশ্চিত করেছে।

উল্লেখ্য, গত ৮ ফেব্রুয়ারী থেকে এতিমখানা দুর্নীতি মামলায় দণ্ডিত হয়ে বেগম জিয়া কারাগারে আছেন। কারাগারে তাঁর সুবিধার জন্য জেল কতৃপক্ষ একটি সার্বক্ষনিক মেডিকেল টিম গঠন করেছে। এছাড়াও ঢাকা মেডিকেল কলেজের একটি মেডিকেল বোর্ড বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে তাঁর স্বাস্থ্য পরীক্ষা হয়েছে।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ব্রেকিং নিউজঃ