বিষফোঁড়া ডিবি পুলিশের এক এসআই !

0

জেলা পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাতের নাম ভাঙিয়ে স্বর্ণালংকার, অর্থ আত্মসাৎ, সাধারণ ভয়ভীতি ও নির্যাতন করে অর্থ আদায় ছাড়াও ব্যাপক অভিযোগ ময়মনসিংহ গোয়েন্দা সংস্থার (ডিবি পুলিশ) উপ পরিদর্শক (এসআই) নাজিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে তার বিরুদ্ধে নিরীহ সাধারণ মানুষকে মামলার ভয়ভীতি দেখিয়ে এবং নির্যাতন করে টাকা আদায়ের অভিযোগও রয়েছে। দাবিকৃত টাকা দিতে না পারলে নির্যাতন চালায় এসআই নাজিমউদ্দিন। মিথ্যা অভিযাগ এনে বিভিন্ন মাদক মামলায় ফাঁসিয়ে দেয়া হয়। তার ভয়ে সন্ধ্যার পর পরই জেলা ও জেলার উপজেলার অনেক স্থান শূন্য হয়ে যায়। লোকজন আতঙ্কে থাকে।

সম্প্রতি নান্দাইল উপজেলার রুপা নামের এক নারীকে ভয় দেখিয়ে জেলা পুলিশ সুপারের কাছে জমা দেয়ার কথা বলে ৪ভড়ি স্বর্ণালংকার ও নগদ ৩০ হাজার টাকা নিয়ে এসে আতœসাত করেন এসআই নাজিমউদ্দিন। দীর্ঘদিন ধরেই ময়মনসিংহের বিভিন্ন এলাকায় নিরীহ মানুষকে হয়রানি করছে এই এসআই। ভয়-ভীতি দেখিয়ে আদায় করছে মোটা অংকের টাকা। টাকা দিতে ব্যর্থ হলে রুদ্র মূর্তি ধরে ভুক্তভোগিদের নির্যাতন করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রথমে মামলায় ফাঁসিয়ে দিয়ে পরে আবার চার্জশিট থেকে নাম বাদ দেয়ার জন্য টাকা দাবি করে। টাকা দিতে রাজি না হলেই বিপদ। মারধর, নির্যাতন। ফাঁসিয়ে দেয় মাদক দিয়ে। দাবিকৃত টাকার অংক সন্তোষজনক না হলে সন্দেহভাজন হিসেবে ভূক্তভোগীদের জেল হাজতে চালান দেয় এই এসআই।

নাম প্রকাশে অনুচ্ছিক এক মহিলা বলেন, আমার স্বামী অন্য জেলায় থাকে। এই সুযোগে এই এসআই রাতে আমার বাসায় এসে গালাগালি করে। ওর ভয়ে আমি এই বাজারে আসতে পারি না। ভয়ে থাকতে হয়, কখন কি করে ফেলে। এ ব্যাপারে একজন জনপ্রতিনিধি বলেন, এই এসআই ডিবি পুলিশের বিষফোঁড়া হয়ে দাঁড়িয়েছে। তার নির্যাতনে এলাকায় নিরীহ মানুষ রাতে ঘুমাতে পারে না। যখন তখন যাকে ইচ্ছে, তাকে মাদক, অস্ত্র মামলার ভয় দেখিয়ে টাকা আদায় করে। কেউ টাকা না দিলে ব্যাপক নির্যাতন করে।

অবশ্য ময়মনসিংহ জেলাব্যাপী এই এসআইয়ের অনিয়ম ও দুর্নীতি নিয়ে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা চলছে। তার বিরুদ্ধে দিনে দুপুরে দুর্নীতি ও রাতে সাধারণ মানুষদেরকে হয়রানি করার অভিযোগ রয়েছে। দিনে বিভিন্ন মামলা মোকদ্দমা তদন্ত ও রাতে সাধারণ মানুষকে ধরে গ্রেফতার বাণিজ্য, মাদক ব্যবসায়ীদের ধরে টাকা আদায় করে ছেড়ে দেওয়াসহ বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে এই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। রহস্য ঘেরা এই এসআইয়ের জীবন। বেতন ৪২ হাজার টাকা হলেও ময়মনসিংহ শহরের গনশারমোড়ে তার মালিকানাধীন বাড়ির দাম দেড় কোটি টাকা।

পুলিশ মানেই সমাজের অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো, দেশ এবং সাধারন জনগনের বন্ধু হচ্ছে পুলিশ যাদের কাছে মাথা গুজে সাধারন মানুষ। কিন্তু সেই পুলিশই যদি ভক্ষক হয় তাহলে আর সাধারন মানুষের কিছুই করার থাকে না। সেরকমই একজন এসআই নাজিমউদ্দিন। পুলিশের চাকরি থেকে মাসিক আয় (বেতন ৪২ হাজার ৬৬০ টাকা)। সেই অনুযায়ী তিনি সরকারকে মাসিক করও পরিশোধ করেন। কিন্তু মাঠপর্যায়ে কাজ করতে গিয়ে সরকারের একটি গুরুত্বপূর্ণ সংস্থা এই পুলিশ উপপরিদর্শকের বাড়ি দেখে সবাই অবাক হয়ে যান। এলাকার মানুষের কাছে এটি ‘ডিবির বাড়ি’ হিসেবে পরিচিত। তবে নাজিমউদ্দিন নিজেকে ডিবি পুলিশ পরিচয় দেন বলে বাড়িটি ডিবি পুলিশের বাড়ি বলেই সবাই জানে। এব্যাপারে এসআই নাজিমউদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করা হলে, তিনি কথা শেষ না করেই তিনি ফোন কেটে দেন।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ব্রেকিং নিউজঃ