বিএনপির ক্লিন ইমেজের নেতারা

0

যেকোনো নির্বাচনে একটা ক্লিন ইমেজের প্রার্থী দেওয়ার চেষ্টা করে রাজনৈতিক দলগুলো। কারণ একজন ক্লিন ইমেজের প্রার্থী দিলে অন্যান্য আসনগুলোতেও তার প্রভাব পড়ে। ফলে অন্যান্য প্রার্থী এবং দল- দুটোই লাভবান হয়। কোনো একটি আসনে এমন প্রার্থী দিলে ঐ এলাকার ভোটারদের মধ্যে একটি বার্তা পৌঁছে যে ঐ নির্দিষ্ট দলটি ভালো প্রার্থী দিয়েছে।

এবারের নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী তালিকাতে বিভিন্ন মামলায় দণ্ডিত, বিতর্কিত মামলার আসামি, খুনের আসামি দিয়ে ভরপুর। কিন্তু তার মধ্যেও সাগর সেঁচে মুক্তো বের করে আনার মতো বিএনপির কয়েকজন প্রার্থী খুঁজে পাওয়া যায়, যাদের ক্লিন ইমেজ রয়েছে। সেই প্রার্থীদের জাতীয়ভাবে ভাবমূর্তি এবং জনপ্রিয়তাও রয়েছে। ব্যক্তিত্ববান রাজনীতিবিদ হিসেবে যারা সুপরিচিতি পেয়েছেন তারা। এই ব্যক্তিরাই নির্বাচনের মাঠে বিএনপিকে এগিয়ে রাখতে পারে।

বিএনপি এবার প্রায় ৮ শতাধিক প্রার্থীর তালিকা প্রকাশ করেছে। তার মধ্যে আনুমানিক ৫শ জনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন মামলা রয়েছে। এদের মধ্যে আবার প্রায় দেড় ডজন বিভিন্ন মামলায় দণ্ডিত। বাকিদের মধ্যে সন্ত্রাস, অগ্নিসংযোগসহ বিভিন্ন মামলা বিচারাধীন রয়েছে। এর মাঝেও বিএনপি যে কয়জন ক্লিন ইমেজের প্রার্থী দিয়েছে, তাদের মধ্যে রয়েছেন-

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের রাজনৈতিক উত্থানটা রূপকথার গল্পের মতোই। তিনি ২০০১ সালেও একজন প্রতিমন্ত্রী ছিলেন এবং বিএনপির তৃতীয় সারির নেতা ছিলেন। তারপর ওয়ান ইলেভেন এবং অন্যান্য চক্র আর ঘটনাপ্রবাহের মাধ্যমে তিনি বিএনপির মহাসচিবের পর্যায়ে চলে আসেন। বেগম খালেদা জিয়া গ্রেপ্তার হওয়ার পর গত ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে কার্যত মির্জা ফখরুলই বিএনপি চালাচ্ছেন। বিএনপি চালালেও দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে তাঁর বিরুদ্ধে বিভিন্ন মামলা হলেও জনগণের কাছে তাঁর একটা স্বচ্ছ ভাবমূর্তি তৈরি হয়েছে। সাধারণ মানুষ তাঁর কথাবার্তা এবং বিভিন্ন বক্তব্যকে শালীন এবং সহনীয় মাত্রার বলে মনে করে। বিএনপির রাজনীতি করলেও বড় ধরনের কোনো বদনাম তাঁর নেই। তাঁর প্রতি এই ধারণা থেকেই তিনি ক্লিন ইমেজের ভাবমূর্তি অর্জন করেছেন। এটা নির্বাচনে বড় ধরনের প্রভাব ফেলবে বলে অনেকে মনে করছেন।

আন্দালিব রহমান পার্থ

পার্থ মূলত আওয়ামী লীগ পরিবারের এবং তিনি সরাসরি বিএনপি না করেন না। এবার তিনি তাঁর রাজনৈতিক দল বিজেপি থেকে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। কিন্তু তাঁর প্রতীক ধানের শীষ এবং তিনি ২০ দলীয় জোটের একজন সদস্য- তাই তাঁর ভালোমন্দ সবকিছুই এখন বিএনপির পকেটেই যায়। রাজনীতিবিদ হিসেবে আন্দালিব রহমান পার্থ তরুণদের মধ্যে বেশ জনপ্রিয়। তাঁর কথাবার্তা সাধারণ মানুষ পছন্দ করে। বিশেষ করে ২০০৮ সালে সংসদ সদস্য নির্বাচন হওয়ার পর সংসদে যেসব বক্তব্যগুলো রেখেছিলেন তা সাধারণ মানুষকে স্পর্শ করেছিল। তরুণদের মধ্যে জনপ্রিয়তার কারণেই নির্বাচনের মাঠে তাঁর একটি স্বচ্ছ ভাবমূর্তি তৈরি হয়েছে। তিনিও এবার নির্বাচনে ক্লিন ইমেজের প্রার্থী হিসেবে আবির্ভূত হবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

ড. মঈন খান

ড. মঈন খান একসময় বিএনপির তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী, স্থায়ী কমিটির সদস্য ছিলেন। বিএনপির নেতা হলেও তিনি একজন সজ্জন শিক্ষাবিদ হিসেবেই পরিচিত। বিদেশি বিভিন্ন কূটনীতিকদের সঙ্গেও তাঁর সুসম্পর্ক রয়েছে। রাজনৈতিক অঙ্গনে এখন পর্যন্ত কোনো স্খলন লক্ষ্য করা যায়নি। তিনি একজন শিক্ষিত রাজনীতিবিদ হিসেবে একটা শ্রেণীর মধ্যে সমাদৃত। তাই তিনিও রাজনীতিতে একটা ক্লিন ইমেজ নিয়েই নির্বাচনে আসছেন।

শামা ওবায়েদ

বিএনপির কে এম ওবায়দুর রহমানের মেয়ে শামা ওবায়েদ বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে দীর্ঘদিন দরে জড়িত। বিএনপির রাজনীতিতে জড়িত থাকা সত্ত্বেও তাঁর পারিবারিক ভাবমূর্তি তিনি অক্ষুণ্ণ রেখেই রাজনীতি করছেন। রাজনীতিতে তাঁরও কোনো স্খলনের অভিযোগ এখন পর্যন্ত নেই। বিশেষ করে বিএনপি-জামাত জোট সরকারের আমলে বিএনপি যখন একটি দুর্নীতিবাজ সরকার হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে, তখনও শামা ওবায়েদ নিজেকে এই স্রোতের থেকে আলাদা করে রেখেছিলেন। এজন্য তাঁর একটি ভাবমূর্তি রয়েছে।

রুমিন ফারহান

ভাষা শহীদ অলি আহাদের মেয়ে রুমিন ফারহান পেশায় একজন আইনজীবী। তিনি রাজনীতিতে নতুন এলেও তরুণ প্রজন্ম এবং বিএনপিপন্থীদের মধ্যে নিজের একটা অবস্থান তৈরি করে নিয়েছেন। বিভিন্ন টকশোতে তাঁর উপস্থিতি এবং বিএনপির পক্ষে তাঁর বক্তব্য অনেকেই পছন্দ করে। তিনি তরুণদের মধ্যে বেশ জনপ্রিয়। এবারে নির্বাচনে তিনিও বিএনপির ক্লিন ইমেজের প্রার্থী হিসেবে আবির্ভূত হতে যাচ্ছেন।

এইসব প্রার্থীরা এবার নির্বাচনে নিজেদের আসনে কি করবেন, সেটা অন্য বিষয়। কিন্তু তাদের প্রার্থিতা দেওয়ার ফলে যে বিতর্কিত প্রার্থী তালিকা নিয়ে কলঙ্ক রয়েছে বিএনপির, তা থেকে কিছুটা দায়মোচন হবে তাদের।

সুত্রঃ বাংলা ইনসাইডার

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

ব্রেকিং নিউজঃ