তৃতীয় মেয়াদে আওয়ামী লীগ?

0

টানা দুই মেয়াদে সরকারে আওয়ামী লীগ। ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনের আগে সবচেয়ে বড় প্রশ্ন আওয়ামী লীগ কি পারবে তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসতে? আওয়ামী লীগ যদি এবারের নির্বাচনে জয়ী হয়, তাহলে সেটা হবে বাংলাদেশের জন্য এক নতুন অধ্যায়। এখন পর্যন্ত নির্বাচনের প্রচারণা এবং অন্যান্য কার্যক্রম যে ধারায় চলছে, তাতে তৃতীয়বার আওয়ামী লীগের ক্ষমতায় যাওয়ার পক্ষেই পাল্লা বেশী ভারী। আওয়ামী লীগের কট্টর সমালোচকরাও বলেছেন, জয়ের পাল্লা আওয়ামী লীগের দিকেই ঝুঁকে আছে। অবশ্য এমন মন্তব্যের সঙ্গে তাঁরা অনেক কিছু জুড়ে দিচ্ছেন। যেমন, আওয়ামী লীগ একটি নিয়ন্ত্রিত নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় থাকার কৌশল কাজ করছে।

অনেক সমালোচক বুদ্ধিজীবী মনে করছেন, দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন যে সবসময় শাসক দলের পক্ষেই যায়, তার বড় প্রমাণ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। নির্বাচনে বিএনপির উল্লেখযোগ্য সংখ্যক প্রার্থীর প্রার্থিতা উচ্চ আদালত থেকে বাতিল হওয়া, গ্রেপ্তার এবং মামলার ভারে ন্যুজ হয়ে প্রচারণা ইত্যাদি নানা কারণে ভোটের মাধ্যমে ক্ষমতা পরিবর্তনের সম্ভাবনা ক্রমশ ফিকে হয়ে আসছে বিএনপির। বিএনপির নেতারা বলছেন, পরিস্থিতি এমন যে, এই নির্বাচনে কেবল একটি ফলাফল হতে পারে। সেটা হলো আওয়ামী লীগের জয়।

বিএনপির নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রধান নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, ‘নির্বাচন কমিশন, প্রশাসন এবং আইন প্রয়োগকারী সংস্থা একটা লক্ষ্য নিয়েই কাজ করছে, তা হলো আওয়ামী লীগকে বিজয়ী করা।’ তিনি বলেন, ‘জনগণের ভোটাধিকার বলে কিছু নেই। কারণ জনগণ যদি ভোট দেওয়ার সুযোগ পেতো তাহলে অন্যকিছু ঘটতো। কিন্তু তেমন সুযোগ ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ দিতে চায় না।’

বিএনপি এরকম মতামত দিলেও সাধারণ মানুষ এবং রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা তেমনটি মনে করেন না। সাধারণ মানুষ ভোটের মাত্র এক সপ্তাহ আগে আওয়ামী লীগকে মন্দের ভালো বলেই মনে করছে। আওয়ামী লীগকে ক্ষমতা থেকে হটানোর জন্য যে ‘জনগণের জাগরণ’ দরকার ছিলো তা বিএনপি করতে পারেনি। বিএনপি এবারের নির্বাচনে দলের বৃত্তের বাইরে জনগণের জোয়ার সৃষ্টি করতে পারেননি। বরং বিভিন্ন  সময়ে অভিযোগ করে বিএনপি নিজেই নিজেদের জনবিচ্ছিন্নতাকে প্রকাশ্য করেছে। নেতৃত্বের সংকট, মনোনয়ন বাণিজ্য এবং প্রচারণা বিমুখ লড়াইয়ে কখনো মনে হয়নি যে বিএনপি জেতার জন্য নির্বাচন করছে। বরং বারবার বিএনপি জনগণের মধ্যে এরকম ধারণা দিয়েছে যে, ভোটের মাঠ থেকে যেকোন সময় তারা সরে যেতে পারে। জনগণকে উৎসাহ দেয়ার বদলে তারা নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে নানা আতংক ও ভয় ছড়িয়েছে। বিএনপি ভোট নয় অন্য কোন পন্থায় সরকারকে হটাতে চায়, এরকম একটি ধারণা সাধারণ ভোটারদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে। তাই জনগণ ভোটের আগেই ভোটে উৎসাহ হারিয়ে ফেলেছে। তবে, সবকিছু এখনো শেষ হয়নি। ভোটের আগে ঘটতে পারে অনেক কিছুই। এইসব শঙ্কা কাটিয়ে আওয়ামী লীগ সরকার যদি একটি বিশ্বাসযোগ্য ভোটের দিন করতে পারে, তাহলে তৃতীয় মেয়াদে পা রাখবে আওয়ামী লীগই।

সুত্রঃ বাংলা ইনসাইডার

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

ব্রেকিং নিউজঃ